অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আমার বাবার শাহাদাত বরণ জনগণের চেতনাকে আরও জাগ্রত করেছে-যেইনাব


মঙ্গলবার ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা যায় যে শীর্ষ সামরিক কমান্ডার কাসেম সোলাইমানির জানাজায় পদদলিত হয়ে কমপক্ষে ৩২ জন নিহত এবং ১৯০ জন আহত হয়েছেন।

এই সপ্তাহে তেহরান, কওম ও আহওয়াজে তিন দফায় নামাযে জানাযার পরে সোলায়মানির নিজ শহর কেরমানে তাকে সম্মান জানাতে জড়ো হয়েছিল কয়েক লক্ষ মানুষ। রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, হতাহতের পরে দাফন স্থগিত করা হয়েছে।

কাসেম সুলেইমানির নামাযে জানাযাতে তাঁর মেয়ে যেইনাব সুলেইমানি যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ার করে বলেন, আগামীতে তাদের অনেক কালো অধ্যায় পার করতে হবে।

যেইনাব বলেন,যুক্তরাষ্ট্র ও ইহুদিবাদিদের জানা উচিত যে আমার বাবার শাহাদাত বরণ জনগণের চেতনাকে আরও জাগ্রত করেছে এবং এটি তাদের জন্য অন্ধকার দিন আনবে।

ইহুদিবাদিদের খেলার পুতুল, উন্মাদ্‌ অহংকারী ট্রাম্প, এমনটা ভাববেন না যে আমার বাবার শাহাদাত দিয়ে সবকিছু শেষ হয়ে গেছে। আমার বাবা এমন এক পিতা পেয়েছিলেন যিনি সর্বদা তাঁর পাশে ছিলেন এবং আমরাও আমাদের বাবার মতো তাঁর পাশে দাঁড়াব।"

গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলায় সোলাইমানির নিহত হবার ফলে ব্যাপক সংঘাতের আশঙ্কা ছড়িয়ে পড়েছে। যুক্তরাষ্ট্র এবং ইরান একে অপরের কর্মের তীব্র নিন্দা করেছে এবং কঠোর প্রতিউত্তরের হুমকি দিচ্ছে ইরান।

মঙ্গলবার ইরানের বিপ্লবী গার্ডের নেতা হোসেইন সালামি বাগদাদ বিমানবন্দরের বাইরে সংঘটিত বিমান হামলার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সঠিক প্রতিশোধ নেওয়ার হুমকি দিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা ইরান-সমর্থিত বাহিনী দ্বারা ইরাকে যুক্তরাষ্ট্রের সৈন্যদের হত্যার জন্য সোলাইমানিকে দোষারোপ করেন। তার বিরুদ্ধে ঐ অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের ওপর নতুন করে হামলার ষড়যন্ত্র করারও অভিযোগ করেন।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা বৃদ্ধি পাবার কারণে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভাদ জারিফকে জাতিসংঘের আসন্ন বৈঠকে অংশ নেয়ার জন্য নিউইয়র্ক ভ্রমণের ভিসা প্রত্যাখ্যান করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

বিমান হামলার পরে ইরান আরও ঘোষণা করেছে যে তারা তাদের পারমাণবিক কর্মসূচি প্রতিরোধকারী ২০১৫ পারমাণবিক চুক্তি সম্মতি হ্রাস করছে। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, এই খবর শোনার পর টুইটারে লেখেন,’ ইরান কখনোই পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি করতে পারবেনা। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ২০১৫ পারমাণবিক চুক্এরর তালিকা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের নাম প্রত্যাহার করেন এবং নতুন করে ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন।

ট্রাম্প রবিবার রাতে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যে ইরান যদি যুক্তরাষ্ট্রের কর্মী বা সম্পদ আক্রমণ করে তাহলে ৫২ টিরও বেশি ইরানি স্থান লক্ষ্য করে যুক্তরাষ্ট্র "খুব কঠোর এবং দ্রুত" হামলা করবে। 52 সংখ্যাটি 1979 সালে 444 দিনের জন্য তেহরান যুক্তরাষ্ট্রের ৫২জন নাগরিককে জিম্মি করেছিলো তার প্রতিনিধিত্ত করছে।ট্রাম্প সাংবাদিকদের বলেন, "তারা আমাদের লোকদের হত্যা করবে, নির্যাতন ও অঙ্গহীন করবে, রাস্তার ধারে বোমা ব্যবহার করে আমাদের লোকজনকে উড়িয়ে দেবে কিন্তু আমরা তাদের সাংস্কৃতিক জায়গাগুলি স্পর্শ করতে পারবোনা? এটা কখনোই হয়না।

ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের হুমকি প্রতিহত করে বলেছেন: "যারা ৫২ নম্বরের কথা উল্লেখ করেছেন তাদের ২৯০ নম্বরটিও মনে রাখা উচিত। ইরানি জাতিকে কখনও হুমকি দেবেন না।"

১৯৮৮ সালে যুক্তরাষ্ট্র পারস্য উপসাগরে ভুলবশত একটি ইরানি যাত্রীবাহী বিমান গুলি করে ভূপাতিত করে। ঐ ঘটনায় বিমানের ২৯০ আরোহী নিহত হয়। যুক্তরাষ্ট্রের তত্কালীন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রেগান ঐ ঘটনায় গভীর দুঃখপ্রকাশ করেন এবং ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারদের প্রায় ৬২ কোটি ডলার ক্ষতিপূরণ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

তেহরান এবং ওয়াশিংটনের মধ্যেকার হুমকি এবং পাল্টা হুমকিগুলো জোরদার হওয়ায় নেটো প্রধান জেনস স্টোলটেনবার্গ ইরানকে " সহিংসতা ও উস্কানি" এড়াতে অনুরোধ করেন। ব্রাসেলসে নেটোর ক্ষমতাসীন কাউন্সিলের জরুরি অধিবেশনে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা মিত্রদের ড্রোন হামলায় সোলাইমানিকে হত্যা করার বিষয়ে অবহিত করেন।


স্টলটেনবার্গ বলেন,আমরা একমত যে ইরানকে কখনই পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি করতে দেয়া উচিত নয়। আমরা ইরানের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছি। এবং বিভিন্ন সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর প্রতি ইরানের সমর্থনের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

হোয়াইট হাউস জানিয়েছে বুধবার ড্রোন হামলার বিষয়ে পুরো ১০০ সদস্যের সিনেটকে তারা অবহিত করবে। রিপাবলিকানরা সোলাইমানিকে হত্যা করার ট্রাম্পের পদক্ষেপকে সমর্থন করেছে, তবে বিরোধী ডেমোক্র্যাটরা এই হামলার ন্যায্য কারণ জানতে চেয়েছে।

প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি তার ডেমোক্র্যাট সহকর্মীদের কাছে এক চিঠিতে জানিয়েছেন যে " ইরান সম্পর্কে প্রেসিডেন্টের সামরিক পদক্ষেপকে সীমাবদ্ধ করার জন্য" এই সপ্তাহে একটি যুদ্ধশক্তি সংক্রান্ত প্রস্তাবের ওপর ভোট হবে। "

আমার বাবার শাহাদাত বরণ জনগণের চেতনাকে আরও জাগ্রত করেছে-যেইনাব
please wait

No media source currently available

0:00 0:05:18 0:00

XS
SM
MD
LG