অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের দুই দশকের উপস্থিতির অবসান হলো


যুক্তরাষ্ট্র বিমান বাহিনীর একটি বিমান কাবুল বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের প্রস্তুতি নেবার সময় সেনা সদস্যরা দাঁড়িয়ে আছেন। আগষ্ট ৩০, ২০২১।

আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের দুই দশক দীর্ঘ উপস্থিতির শেষ হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় কমান্ডের প্রধান জেনারেল ফ্রাঙ্ক ম্যাকেনজি বলেছেন, কাবুল বিমানবন্দর থেকে মধ্যরাতের এক মিনিট আগে (ইএসটি সময় বিকেল ৩.২৯ মিনিট) সবশেষ বিমানগুলো ছেড়ে যায়।

তালিবানের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা ভয়েস অফ আমেরিকাকে জানিয়েছেন, আফগানিস্তান থেকে সব বিদেশী দখলদার বাহিনী কিছুক্ষন আগে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সবশেষ বিমানগুলো চলে যাবার কথা জানানো হলেও, হোয়াইট হাউস ও পেন্টাগন প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল যে, কাবুল থেকে আমেরিকান এবং সংকটে থাকা আফগানদের সরিয়ে নিতে 'শেষ মূহুর্ত পর্যন্ত' সহায়তা অব্যাহত রাখবে। মানুষকে বিমানে করে সরিয়ে নেবার ঐ কার্যক্রমকে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর ইতিহাসের সর্ববৃহৎ কার্যক্রম হিসাবে বর্ণনা করা হচ্ছে।

এর আগে, জয়েন্ট চিফস অফ স্টাফের আঞ্চলিক কার্যক্রমের ডেপুটি ডিরেক্টর সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল উইলিয়াম "হ্যাঙ্ক" টেইলর সাংবাদিকদের জানান, শেষ মূহুর্ত পর্যন্ত মানুষকে বিমানে করে সরিয়ে নেবার ক্ষমতা তাদের অব্যাহত আছে।

হোয়াইট হাউস এবং পেন্টাগন জানিয়েছে, তালিবান আগষ্টের শুরুতে আফগানিস্তানের দখল নেবার পর আজ সোমবার সকাল পর্যন্ত ৫ হাজার আমেরিকানসহ মোট ১ লাখ ১৬ হাজার ৭০০ জনকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

সোমবার হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি সাংবাদিকদের বলেন, ঐ সময়কালে প্রায় ৬০০০ জন আমেরিকান আফগানিস্তান ত্যাগ করেছেন। কিন্তু 'সেখানে এখনও অল্প সংখ্যক মানুষ রয়েছেন' যাদেরকে বের করে আনা সম্ভব হয়নি।

XS
SM
MD
LG