অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বুধবার রাতে ভাইস প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীদের গুরুত্বপূর্ণ বিতর্ক অনুষ্ঠিত


পেন্স এবং হ্যারিস উভয়ই বিতর্কের মৌলিক নিয়ম পালন করেন, অপমান হজম করেন এবং বরঞ্চ তাঁরা তাঁদের মজবুত নীতিগুলো সরাসরি ভোটদাতাদের সামনে তুলে ধরেন। ভাইস প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীদের বিতর্ক সাধারণত নাটকীয় ভাবে জনমত পরিবর্তনে কোন ভূমিকা পালন করে না । কিন্তু সম্প্রতি ট্রাম্পের করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়া এবং ৭৭ বছর বয়সী বাইডেনের বয়স বিবেচনায় নিয়ে ভোটদাতারা তাঁদের নির্বাচনী জুটির প্রতি নতুন করে মনোযোগ দিয়েছেন এটা বোঝার জন্য যে অপ্রত্যাশিত কিছু ঘটলে তাঁরা দেশ পরিচালনায় সমর্থ কীনা।           

গতরাতে ভাইস প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী , বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স এবং অপর ভাইস প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডেমক্র্যাটিক দল থেকে কমলা হ্যারিসের মধ্যকার বিতর্কের শুরুতেই তাঁরা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প করোনাভাইরাস মহামারির প্রথম দিকে যে ভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন সে নিয়ে মতভেদ প্রকাশ করেন। সল্ট লেক সিটিতে ইউটাহ ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিত বুধবার রাতে ৯০ মিনিটের এই বিতর্কে পেন্স এবং হ্যারিস অর্থনীতি এবং পরিবেশ থেকে শুরু করে ট্রাম্পের সুপ্রিম কোর্টের মনোনয়ন আসন্ন লড়াই নিয়ে তাঁদের ভিন্নমত প্রকাশ করেন। তবে গত শুক্রবার ট্রাম্পের এই ঘোষণা যে তিনি করোনাভাইরাসে সংক্রমিত বলে সনাক্ত হয়েছেন, তার ফলেই প্রার্থীরা তাঁদের বিতর্কে দৃঢ়তার সঙ্গে মনোযোগ দিয়েছেন এই মহামারির দিকে যার ফলে জন্স হপকিন্স ইউনিভার্সিটির উপাত্ত অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রে ২,১১,০০০ লোক প্রাণ হারিয়েছেন এবং সংক্রমিত হয়েছেন ৭৫ লক্ষেরও বেশি মানুষ । হ্যারিস বলেন , “আমাদের দেশে এ পর্যন্ত যে কোন প্রেসিডেন্টের প্রশাসনের সব চেয়ে বড় ব্যর্থতার সাক্ষী হয়ে রইলেন আমেরিকান জনগণ। তিনি আরও বলেন বলেন , “ আপনারা কি ভাবতে পারেন আপনারা প্রস্তুতি হিসেবে কি করতেন যদি আপনারা ১৩ই মার্চের পরিবর্তে এই মহামারির বিষয়টি ২৮ শে জানুয়ারী জানতে পারতেন , যেটা তাঁরা জানতেন”? তাঁরা জানতেন কিন্তু তাঁরা গোপন করেছিলেন এবং বলেছিলেন এটি একধরণের ধোঁকাবাজি। হ্যারিস বলেন এত কিছুর পরও তাঁদের এখনও কোন পরিকল্পনা নেই।

কিন্তু পেন্স বলেন যে এই মহামারির গোড়ার দিকে চীন থেকে বিমানযাত্রা বন্ধ করে দেবার বিষয়ে প্রেসিডেন্টের সিদ্ধান্ত, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এই প্রথম গোটা জাতিকে প্রস্তুত হতে অমুল্য সময় দিয়েছে এবং আমি বিশ্বাস করি এর ফলে হাজার হাজার আমেরিকানের জীবন রক্ষা করা সম্ভব হয়েছে। সাবেক কংগ্রেস সদস্য এবং ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের সাবেক গভর্ণর ৬১ বছর বয়সী পেন্স এবং ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এবং যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান সেনেটার ৫৫ বছর বয়সী হ্যারিসের মধ্যকার এই বিতর্ক ছিল, এবারকার নির্বাচনে রিপাবলিকান ও ডেমক্র্যাটদের মধ্যে মোট চারটি বিতর্কের মধ্যে দ্বিতীয় বিতর্ক এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীদের একমাত্র বিতর্ক।এবারকার বিতর্ক, ট্রাম্প এবং ডেমক্র্যাটিক দল থেকে প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী, সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের মধ্যকার গত সপ্তার বিশৃঙ্খল বিতর্ক থেকে একদম ভিন্ন ।

পেন্স এবং হ্যারিস উভয়ই বিতর্কের মৌলিক নিয়ম পালন করেন, অপমান হজম করেন এবং বরঞ্চ তাঁরা তাঁদের মজবুত নীতিগুলো সরাসরি ভোটদাতাদের সামনে তুলে ধরেন। ভাইস প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীদের বিতর্ক সাধারণত নাটকীয় ভাবে জনমত পরিবর্তনে কোন ভূমিকা পালন করে না । কিন্তু সম্প্রতি ট্রাম্পের করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়া এবং ৭৭ বছর বয়সী বাইডেনের বয়স বিবেচনায় নিয়ে ভোটদাতারা তাঁদের নির্বাচনী জুটির প্রতি নতুন করে মনোযোগ দিয়েছেন এটা বোঝার জন্য যে অপ্রত্যাশিত কিছু ঘটলে তাঁরা দেশ পরিচালনায় সমর্থ কীনা।

XS
SM
MD
LG