অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আর্চারিতে সম্ভাবনাময় একটি নাম চুয়াডাঙ্গার ইতি খাতুন


বাংলাদেশের আর্চারি খেলোয়াড় ইতি খাতুন

চুয়াডাঙ্গার মেয়ে ইতি খাতুন ১৪ বছর বয়সে  টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়ামে আর্চারিতে যোগদান করে। এর আগে স্কুলের বিভিন্ন খেলায় অংশগ্রহণ করতেন।খেলাধুলায় প্রবল ইচ্ছা শক্তির কারণে তার বাবা বারবার বিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। 

চুয়াডাঙ্গার মেয়ে ইতি খাতুন ১৪ বছর বয়সে টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার স্টেডিয়ামে আর্চারিতে যোগদান করে। এর আগে স্কুলের বিভিন্ন খেলায় অংশগ্রহণ করতেন। খেলাধুলায় প্রবল ইচ্ছা শক্তির কারণে তার বাবা বারবার বিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। ইতি স্কুল শিক্ষকের সহায়তায় তার বাবাকে বোঝাতে সক্ষম হয় যে খেলাধুলা তার জীবনের প্রধান বিষয়।

ইতি খাতুন বলেন, খেলাধুলা আমার সব। ভালোবেসে যাকে বিয়ে করেছেন তিনি ইতিকে খেলাধুলায় বেশ উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছেন। গত চারমাস আগে তার শাশুড়ি মারা যাওয়ায় তিনি সাময়িকভাবে ছুটিতে আছেন। তা না হলে এবার হয়তো টোকিও অলিম্পিকে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনা থাকতো। নিজেই অকপটে স্বীকার করলেন যে বিবাহিত হওয়ায় মাঝে মধ্যে ঝামেলায় পড়তে হয়।

আর্চারি খেলার সম্ভাবনার কথা বলতে গিয়ে তিনি ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেন, বাংলাদেশের যত খেলা আছে, তার মধ্যে খুব অল্প সময়ে আর্চারি খেলায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করা যায়। চাকরি, টাকা পয়সা সবদিক থেকে নিশ্চয়তা আছে।

তিনি বলেন আর্চারি খেলা একটা জনপ্রিয় নাম। আর মেয়েরা এই খেলায় খুব একটা আসে না।তাই এ পেশায় মেয়েদের এগিয়ে আসতে উৎসাহ দেন তিনি।খেলাধুলায় ভালো করলে বিভিন্ন সংস্থা থেকে চাকরির সুযোগও আছে।

তিনি নিজের কথা তুলে ধরে বলেন, আমাকে এখন আর্মি, আনসার ও পুলিশ বিভিন্ন জায়গা থেকে চাকরির জন্য ডাকছে। তবে আমি পুলিশে যোগ দান করেছি ।এজন্য মাসে বিশ হাজার টাকা পা‌চ্ছি

বাংলাদেশের আর্চারি খেলোয়াড় ইতি খাতুন
বাংলাদেশের আর্চারি খেলোয়াড় ইতি খাতুন

মনোবল ও কঠোর পরিশ্রমের জন্য ইতি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তিনটি স্বর্ণপদক জয়লাভ করেন।তিনি আর্চারি খেলোয়ার হয়ে আন্তর্জাতিকপর্যায়ে স্পেন, নেপাল, থাইল্যান্ড ও জাকার্তায় খেলতে গেছেন। নেপালে সাউথ এশিয়ান গেমসে টিম, মিক্সড এবং একক তিনটিইভেন্টেই স্বর্ণপদক পেয়েছেন।ভালো খেলার জন্য পরবর্তীতে অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন থেকে ১১ লক্ষ টাকা পেয়েছেন।সরকার থেকেও টাকা দেয়া হবে বলে আশ্বাস দেয়া হয়েছে।

নিজেকে ফিট রাখার জন্য ইতি নিয়মিত দুই বেলা প্র্যাকটিস করেন।পাশাপাশি যেসব পুষ্টিকর খাবার খেতে হয় তা খেয়ে থাকেন। তিনি বলেন এ খেলায় অনেক শক্তির প্রয়োজন হয়।এজন্য প্রতিদিন খাবার তালিকায় দুধ, ডিম, মাছ,মাংস ও ফল ইত্যাদি থাকে।

যে কোনো কাজে যদি পরিশ্রম করা যায়, মনোবল ও অধ্যাবসায় থাকে তাহলে খুব তাড়াতাড়ি আর্চারি খেলায় ভালো করা যাবে বললেন ইতি খাতুন। সেই সাথে তিনি বলেন আজ বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ আর্চারি খেলায় পরিচিতি পেয়েছে টিম, কোচ এবং সর্বোপরি সরকার পাশে থাকায়। তিনি বলেন সম্ভাবনাময় এই খেলায় সরকারের আরও পৃষ্ঠপোষকতা দরকার।

XS
SM
MD
LG