অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইউরোপে ২০ লক্ষ মানুষ নতুন করে করোনায় আক্রান্ত


ফাইল ছবি - মেডিক্যাল স্টাফদের একজন সদস্য বুখারেস্টের রোমানিয়ার ইউনিভার্সিটি ইমার্জেন্সি হাসপাতালের কোভিড-১৯ বিভাগে একটি সিরিঞ্জ পরীক্ষা করে দেখে নিচ্ছেন। ৮ নভেম্বর ২০২১।(ছবি-এপি/ভাদিম গিরদা)

শুক্রবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক টেড্রোস এঢেনম গেব্রেইয়েসাস বলেছেন ইউরোপ এখনো কোভিড-১৯ মহামারীর কেন্দ্রস্থল হিসাবে রয়ে গেছে। গত সপ্তাহে ২০ লক্ষ মানুষ নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে যা কিনা মহামারী শুরু হওয়ার পর থেকে ঐ অঞ্চলের সর্বোচ্চ সংখ্যা।

জেনিভায় এক সংবাদ সম্মেলনে ডাব্লুএইচও প্রধান বলেন ঐ অঞ্চলটি গত সপ্তাহে প্রায় ২৭০০০ মৃত্যুর খবর দিয়েছে যা বিশ্বব্যাপী সমস্ত কোভিড-১৯ এ মৃত্যুর অর্ধেকেরও বেশি।

টেড্রোস বলেন পূর্ব ইউরোপে যেসব দেশে কম টিকা দেয়ার হার রয়েছে এমন দেশগুলিতেও কোভিড-১৯ বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে পশ্চিম ইউরোপে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি টিকা দেয়ার হার রয়েছে এমন দেশগুলিতেও কোভিড-১৯ বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেন এটি আমাদের মনে করিয়ে দেয় ভ্যাকসিনগুলি হাসপাতালে ভর্তি, গুরুতর রোগ এবং মৃত্যুর ঝুঁকি হ্রাস করে, কিন্তু অন্যান্য সতর্কতার প্রয়োজন কমায় না।

টেড্রস বলেন ভ্যাকসিনগুলি করোনভাইরাস সংক্রমণকে কমিয়ে দিলেও তারা এটিকে পুরোপুরি প্রতিরোধ করতে পারে না।

ভ্যাকসিনের বিষয়ে, ডাব্লুএইচও প্রধান আবারও বৈষম্য এবং কীভাবে ধনী দেশগুলি ওষুধ বিতরণে নিম্ন আয়ের দেশগুলিকে অবহেলা করছে তা নিয়ে কথা বলেছেন। টেড্রোস বলেন প্রতিদিন নিম্ন আয়ের দেশগুলিতে প্রাথমিক টিকা দেয়ার তুলনায় বিশ্বব্যাপী ছয় গুণ বেশি বুস্টার টিকা দেয়া হয়।

তিনি আবারও উন্নয়নশীল বিশ্বে বিতরণ করার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-পরিচালিত কোভাক্স (COVAX) বিশ্ব ভ্যাকসিন সমবায়ে দান করার জন্য মজুদ ভ্যাকসিন সমৃদ্ধ দেশগুলির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন কোভাক্স সুযোগ পেলে কাজ করে এবং প্রায় ৫০ কোটি ডোজ ১৪৪টি দেশ এবং অঞ্চলে বিতরণ করেছে।

টেড্রোস বলেন যে বেশিরভাগ দেশ তাদের জনগণকে ভ্যাকসিন বিতরণ করতে প্রস্তুত, তবে তাদের ডোজ প্রয়োজন। তিনি জানান দুটি দেশ রয়েছে যারা তাদের জনসংখ্যাকে টিকা দেওয়া শুরু করেনি - ইরিত্রিয়া এবং উত্তর কোরিয়া।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই বছরের শেষ নাগাদ বিশ্বের প্রতিটি দেশের জনসংখ্যার ৪০ শতাংশকে সম্পূর্ণ টিকা দেয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে।

XS
SM
MD
LG