অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

খাশোগজি হত্যার পরও ম্যাক্রঁ তাঁর সৌদি সফরকে সমর্থন করছেন


ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ প্যারিসের এলিসি প্রাসাদে লাটভিয়ার প্রধানমন্ত্রী ক্রিজানিস কারিনের সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনের জন্য পৌঁছেছেন। ১ ডিসেম্বর ২০২১। (ছবি-এপি/পেটিট টেসন)

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল ম্যাক্রঁ সৌদি আরবে তাঁর সফরের সিদ্ধান্ত সমর্থ করে শুক্রবার বলেন তিনি সৌদি সাংবাদিক খাশোগজির হত্যার বিষয়টি ভুলে যাননি।

২০১৮ সালে ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরে খাশোগজির হত্যার পর ম্যাক্রঁই হবেন প্রথম পশ্চিমি নেতা যিনি শনিবার সৌদি আরবের যুবরাজ যিনি কার্যত সেখানকার শাসক, সেই মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে দেখা করবেন।

খাশোগজির হত্যাকান্ড আন্তর্জাতিক উষ্মার সঞ্চার করে এবং এই ক্ষোভ এখনও স্তিমিত নয়। তবে ম্যাক্রঁ বলেন শক্তিশালী সৌদিদের অগ্রাহ্য করে ঐ অঞ্চলের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়া অসম্ভব।

ম্যাক্রঁ তাঁর সফরের প্রথম যাত্রা বিরতির সময়ে দুবাইয়ে সংবাদ মাধ্যমগুলোকে বলেন, “এক সেকেন্ডের জন্যও কে ভাবতে পারে যে আমরা লেবাননকে সাহায্য করতে পারবো এবং মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে পারবো যদি আমরা বলি, উপসাগরীয় অঞ্চলের সব চেয়ে জনবহুল এবং ক্ষমতাধর রাষ্ট্র সৌদি আরবের সঙ্গে আমরা কথা বলবো না”। তিনি আরও বলেন, “এর মানে এ নয় যে আমি সব কিছুকে সমর্থন করছি, সব কিছু ভুলে গেছি যে আমরা আমাদের শরীকদের চাইছি না”। তিনি বলেন তিনি তাঁদের দেশ এবং ঐ অঞ্চলের স্বার্থের জন্য কাজ করছেন।

কাতারে রাতে অবস্থানের পর, ম্যাক্রঁ শনিবার লোহিত সাগরের তীরে সৌদি শহর জেদ্দায় যাচ্ছেন।

২০১৮ সালের ২ রা অক্টোবর খাশোগজি ইস্তাম্বুলের সৌদি কনসুলেটে প্রবেশ করেন তাঁর তুর্কি বাগদত্তাকে বিয়ে করার জন্য কাগজপত্র জমা দিতে। যুক্তরাষ্ট্র এবং তুরস্কের কর্মকর্তাদের মতে অপেক্ষমান একটি সৌদি স্কোয়াড তাঁকে শ্বাসরুদ্ধ করে তাঁর দেহ টুকরো টুকরো করে ফেলে। তাঁর দেহাবশেষ আর খুঁজে পাওয়া যায়নি।

XS
SM
MD
LG