অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চলে গেলেন কলকাতার সাবেক মেয়র সুব্রত মুখোপাধ্যায়


সুব্রত মুখোপাধ্যায়, তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ও কলকাতার সাবেক মেয়র। (ছবি- দ্য ওয়াল)
সুব্রত মুখোপাধ্যায়, তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ও কলকাতার সাবেক মেয়র। (ছবি- দ্য ওয়াল)

চিকিত্‍সকদের সমস্ত চেষ্টা ব্যর্থ করে প্রয়াত হলেন রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী তথা বর্ষীয়ান তৃণমূল কংগ্রেস নেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এসএসকেএম হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন সুব্রত। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। ২০০০ সালে কলকাতা পৌরসভার মেয়র হন তিনি।

পূজার পর থেকেই অসুস্থ ছিলেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়। ২৪ অক্টোবর কিছু শারীরিক পরীক্ষার জন্য তিনি এসএসকেএম হাসপাতালে যান। ডাক্তাররা সেদিনই তাঁকে ভর্তি হওয়ার পরামর্শ দেন। সেদিন থেকেই উডবার্ন ওয়ার্ডে চিকিত্‍সা চলছিল বর্ষীয়ান এই নেতার।

সুব্রতবাবুর সিওপিডির সমস্যা অনেক দিনের। পূজার মধ্যে সেটাই আরও কিছুটা গুরুতর হয়ে ওঠে। ভর্তি হওয়ার কয়েকদিন পর তাঁকে বাইপ্যাপ সাপোর্ট দিতে হচ্ছিল। বৃহস্পতিবার বিকেল থেকেই তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। শেষ পর্যন্ত জীবনযুদ্ধে হার মানলেন।

তাঁর সঙ্কটজনক অবস্থার খবর পেয়ে বাড়ির কালীপুজো ফেলে এসএসকেএমমে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। রাত নটা ২২ মিনিট নাগাদ শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়। সেখান থেকে বেরিয়ে তৃণমূলনেত্রী বলেছিলেন কিছু বলার মানসিক অবস্থায় নেই। তারপর ডাক্তাররা মৃত্যুর খবর জানালে মমতা বলেন "আলোর দিনে এত বড় অন্ধকার! আগামীকালই ছুটি হওয়ার কথা ছিল সুব্রতদার, কী হয়ে গেল!"

তিনি আরও বলেন, তাঁর জীবনে অনেক দুর্যোগ এসেছে। কিন্তু সুব্রতদার মারা যাওয়া অনেক অনেক বড় এক দুর্যোগ।

শুক্রবার সকাল সাড়ে নটা নাগাদ দেহ নিয়ে যাওয়া হবে রবীন্দ্রসদনে। দুপুর দু'টা পর্যন্ত রবীন্দ্রসদনে শায়িত থাকবে মরদেহ। শ্রদ্ধার্ঘ্য জ্ঞাপণের পরে ফের দেহ নিয়ে যাওয়া হবে তাঁর ক্লাবে এবং বাড়িতে। শেষকৃত্য হবে কেওড়াতলা মহাশ্মশানে।

XS
SM
MD
LG