অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

দূষণ মোকাবিলায় দিল্লীতে স্কুল-কলেজ বন্ধ, অফিসে ওয়ার্ক ফ্রম হোম


ভারতের নয়া দিল্লিতে এক ধোঁয়াটে সকালে বাস ডিপোর ভিতরে একজন ব্যক্তি ঝাড়ু দিচ্ছেন।১৬ নভেম্বর ২০২১।(ছবি-রয়টার্স/আনুশ্রি ফাডনাভিস)

দিওয়ালির পর থেকে কালো ধোঁয়াশায় ঢেকেছে দিল্লী ও তার আশপাশের এলাকা। রাজধানী ও তার আশপাশের শহরগুলিতে সব স্কুল-কলেজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে অনির্দিষ্টকালের জন্য। কমিশন ফর এয়ার কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্ট জানিয়েছে, ফের নোটিশ না দেওয়া পর্যন্ত অনলাইনে পড়াশোনা চলবে। দিল্লী, হরিয়ানা, রাজস্থান ও উত্তরপ্রদেশে বিভিন্ন অফিসের ৫০ শতাংশ কর্মী বাড়ি থেকে কাজ করবেন। আগামী ২১ নভেম্বর পর্যন্ত এই ব্যবস্থা চালু থাকবে।

কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড জানিয়েছে, দিল্লী ও জাতীয় রাজধানী এলাকায় বেসরকারি অফিসগুলিকে বলা হয়েছে, তারা যেন ৫০ শতাংশ কর্মীকে বাড়ি থেকে কাজ করার অনুমতি দেয়। একইসঙ্গে জানানো হয়েছে, কেউ যদি রাস্তার ওপরে বাড়ি তৈরির জিনিসপত্র জমা করে রাখে, তাহলে কড়া শাস্তি দেওয়া হবে। ২১ নভেম্বর অবধি রাজধানী ও তার আশপাশের এলাকায় বাড়ি ভাঙা বা যে কোনও নির্মাণ বন্ধ রাখতে হবে। তবে রেলের বিভিন্ন কাজ, মেট্রো পরিষেবা, বিমান বন্দর, বাস টার্মিনাল, এবং প্রতিরক্ষার প্রকল্পগুলিকে ছাড় দেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে দিল্লী ও তার আশপাশে ১১টি তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের মধ্যে কাজ করছে মাত্র পাঁচটি। দিল্লিতে আপাতত ট্রাক ঢোকা বন্ধ করা রয়েছে। কেবল যে ট্রাকগুলি অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বহন করে, তাদেরই ছাড় দেওয়া হচ্ছে। পেট্রল চালিত গাড়ির বয়স ১৫ বছর হলে এবং ডিজেল চালিত গাড়ির বয়স ১০ বছর হলে বাতিল করে দিতে বলা হয়েছে। কোনও গাড়ির চালক যদি যথাযথ এমিসন কন্ট্রোল সার্টিফিকেট দেখাতে না পারেন, তাকে শাস্তি দেওয়া হচ্ছে।

ভারতের রাজধানীতে দূষণ নিয়ে গত সোমবার সুপ্রিম কোর্টের তিরস্কারের মুখে পড়ে দিল্লী সরকার। মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় সরকার দূষণ নিয়ন্ত্রণ নিয়ে জরুরি বৈঠক ডাকে। সেখানে কেন্দ্রীয় সরকার সরকারের কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন। তারা প্রস্তাব দেন, প্রতি সপ্তাহের শেষে লকডাউন করা হোক। আগামী এক সপ্তাহে অফিসগুলিতে ওয়ার্ক ফ্রম হোম চলুক। একইসঙ্গে শহরে নির্মাণকাজ ও কলকারখানা বন্ধ রাখার প্রস্তাব দেওয়া হয়।

দিল্লীর পরিবেশমন্ত্রী গোপাল রাই বলেন, "আমরা প্রস্তাব দিয়েছি, সপ্তাহের শেষে লকডাউন করা হোক। এরপর কোর্ট যা সিদ্ধান্ত নেবে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।"

সুপ্রিম কোর্টে দিল্লী সরকার বলেছিল, রাজধানীর আশপাশে মড়িপোড়া অর্থাৎ শস্যক্ষেতে ফসলের অবশিষ্টাংশ পুড়িয়ে ফেলার জন্যই বাতাস দূষিত হচ্ছে। কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার জানায়, দিল্লীর দূষণের জন্য মড়িপোড়া মাত্র ১০ শতাংশ দায়ী।

XS
SM
MD
LG