অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভারতে ২৪ ঘণ্টায় কোভিড আক্রান্ত ১ লক্ষ ৯৪ হাজার, রাজ্যগুলিকে পর্যাপ্ত অক্সিজেন মজুদের নির্দেশ কেন্দ্রের


একজন স্বাস্থ্যকর্মী একটি ট্রেন স্টেশনে শহরে প্রবেশের অনুমতি দেয়ার আগে একজন ভ্রমণকারীর কাছ থেকে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করার জন্য নমুনা সংগ্রহ করছেন। ১২ জানুয়ারী ২০২২। (ছবি-এপি/রাজনীশ কাকড়ে)

বুধবার সকালের তথ্য অনুসারে, তার আগের ২৪ ঘণ্টায় ভারতে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লক্ষ ৯৪ হাজার ৭২০ জন। এর আগের দিন কোভিডে আক্রান্ত হয়েছিলেন ১ লক্ষ ৬৮ হাজার জন। অর্থাৎ ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণের হার বেড়েছে ১৫.৮ শতাংশ। বেড়েছে পজিটিভিটি রেটও। বর্তমানে দেশে পজিটিভিটি রেট ১১.৫ শতাংশ।

ভারতে কোভিডের ওমিক্রনে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৮৬৮ জন। প্রথমে দক্ষিণ আফ্রিকায় ওই ভ্যারিয়ান্ট দেখা গিয়েছিল। ভারতে ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি মহারাষ্ট্রে। সেখানে ১২৮১ জনের দেহে ওই ভ্যারিয়ান্ট পাওয়া গিয়েছে। রাজস্থানে ওমিক্রনে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৪৫ জন।

দেশে এখনও পর্যন্ত কোভিড ভ্যাকসিনের ১৫৩ কোটি ডোজ দেওয়া হয়েছে। কোভিডের তৃতীয় ওয়েভে ২৯ টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ১২০ টি জেলায় সাপ্তাহিক পজিটিভিটি রেট হয়েছে ১০ শতাংশ। চলতি বছরের শুরু থেকেই স্বাস্থ্যকর্মী ও সম্মুখসারির কোভিড যোদ্ধাদের দেওয়া হচ্ছে বুস্টার ডোজ। ৬০ বছরের বেশি বয়সী যাদের শরীরে অন্যান্য গুরুতর রোগ আছে, তাদেরও বুস্টার ডোজ দেওয়া হচ্ছে। সরকারের এক বিশেষজ্ঞ বলেন, ভ্যাকসিন সত্ত্বেও বেড়েই চলেছে ওমিক্রনের সংক্রমণ।

কোভিডের তৃতীয় ঢেউ চলার সময় যারা আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের বেশিরভাগই সেরে উঠেছেন বাড়িতে। সংক্রমণ ঠেকাতে ইতিমধ্যে বিভিন্ন রাজ্যে চালু হয়েছে নাইট কারফিউ। বন্ধ করা হয়েছে বেসরকারি অফিস।

করোনার সেকেন্ড ওয়েভের সময় মেডিক্যাল অক্সিজেনের অভাব দেখা দিয়েছিলো ভারতে। রাজ্যে রাজ্যে অক্সিজেনের জোগান দিতে হিমশিম খেতে হয়েছিল কেন্দ্রকে। রোগীদের জন্য তরল অক্সিজেনের জোগান বজায় রাখতে অক্সিজেন প্ল্যান্ট তৈরির পরিকল্পনাও হয়েছিল। যদিও থার্ড ওয়েভে শ্বাসকষ্টের সমস্যা তেমনভাবে প্রকট হয়নি তবে যে কোনও পরিস্থিতির মোকাবিলা করার জন্য এখন থেকেই তরল মেডিক্যাল অক্সিজেন মজুদ রাখতে রাজ্যগুলিকে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যসচিব রাজেশ ভূষণ সমস্ত রাজ্যের সরকারকে চিঠি লিখে মেডিক্যাল অক্সিজেনের জোগান বাড়ানোর কথা বলেছেন। প্রতিকুল পরিস্থিতি তৈরি হলে রাজ্য সরকারের হাতে যাতে মেডিক্যাল অক্সিজেন মজুত থাকে সে জন্য এখন থেকেই পরিকল্পনা করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

XS
SM
MD
LG