অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

লখিমপুর-খেরি যাওয়ার পথে পুলিশের হাতে আটক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী 


নদীয়ার একটি সমাবেশে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী - ফাইল ফটো- রয়টার্স

সোমবার ভোরে লখিমপুর-খেরি যাওয়ার পথে আটক হলেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢরা। সিতাপুরে এক সরকারি অতিথিশালায় রাখা হয়েছে প্রিয়াঙ্কাকে। সেখান থেকে তিনি ফোনে সংবাদ মাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দেন। পুলিশের উদ্দেশে তাঁর প্রশ্ন, “তোমরা যদি আমাকে গ্রেফতার করতে পার, তাহলে মন্ত্রীর যে ছেলে খুনের দায়ে অভিযুক্ত হয়েছেন, তাঁকে গ্রেফতার করছ না কেন?” তাঁর অভিযোগ, যোগী আদিত্যনাথের আমলে উত্তরপ্রদেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গিয়েছে।"

অভিযোগ, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্রের ছেলে আশিস মিশ্রের গাড়ি কৃষকদের ওপর দিয়ে চালিয়ে দেওয়া হয়েছিল। অভিযোগ অস্বীকার করে আশিস বলেছেন, তাঁদের কনভয় লখিমপুর পৌঁছনোর আগেই অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি ছিল সেখানে। বহু মানুষের জমায়েত হয়েছিল। তাঁদের গাড়ি দেখেই পাথর ছুড়তে শুরু করে কয়েকজন। গাড়ি ঘিরে ফেলে তারা। ইট, পাথরের ঘায়ে গুরুতর জখম হন ড্রাইভার হরিওম মিশ্র। মাথা ফেটে রক্ত বের হতে থাকে তাঁর। স্টিয়ারিংয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন তিনি।

প্রিয়াঙ্কা জানান, এদিন ভোর চারটেয় লখিমপুর-খেরির অল্প দূরে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁকে বলা হয়, ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৫১ নম্বর ধারা অনুযায়ী তিনি গ্রেপ্তার হয়েছেন। পুলিশ আশঙ্কা করছিল, ভবিষ্যতে তিনি কোনও ‘অপরাধজনক কাজ’ করতে পারেন।

কংগ্রেস নেত্রীর কথায়, “গ্রেপ্তার করার আগে আমাকে কোনও কাগজ দেখানো হয়নি। কোনও কাগজ ছাড়া আটক করলে আমি বলতে পারি, আমাকে অপহরণ করা হয়েছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যদি আমাকে ১৫১ ধারায় অভিযুক্ত না করা হয়, আমি মুক্তি পাব।” প্রিয়াঙ্কার অভিযোগ, তাঁকে আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলতে দেওয়া হয়নি।

কংগ্রেস নেত্রীর অভিযোগ, পুলিশ প্রথমে তাঁকে বলেছিল, লখিমপুর-খেরিতে ১৪৪ ধারা জারি করা আছে। প্রিয়াঙ্কা বলেন, তিনি চারজনের কম লোক নিয়ে লখিমপুর খেরিতে যাচ্ছেন। তখন পুলিশ বলে, তাঁকে ১৫১ ধারা অনুযায়ী আটক করা হচ্ছে। প্রিয়াঙ্কা বলেন, পুলিশকর্মীরা তাঁকে ধাক্কা দিয়ে গাড়িতে তুলেছেন। তাঁকে হেনস্থা করা হয়েছে।

প্রিয়াঙ্কা পুলিশকর্মীদের বলেন, “ওয়ারেন্ট নিকালো, অর্ডার নিকালো, নেহি তো ম্যঁয় ইহাঁ সে নেহি হিল রহি হুঁ।” প্রিয়ঙ্কার পাশেই দাঁড়িয়েছিলেন কংগ্রেস নেতা দীপিন্দর হুডা। তিনি পুলিশকর্মীদের ধমক দিয়ে বলেন, “আপনারা প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে আটকাচ্ছেন কেন?” এরপরে দেখা যায়, পুলিশ ঠেলতে ঠেলতে হুডাকে গাড়ির দিকে নিয়ে যাচ্ছে। "হুডা তখন চেঁচিয়ে বলেন, আমি নিজের চোখে দেখেছি, পুলিশ প্রিয়াঙ্কাকে আঘাত করেছে। আমি সাক্ষী দেব।"

এদিকে প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী টুইট করে বলেন, "প্রিয়ঙ্কাকে ভয় পেয়েছে বিজেপি। তাই তাকে আটকানো হয়েছে।"

শোনা যাচ্ছে, তাঁকে রাজ্যের প্রভিন্সিয়াল আর্মড কনস্ট্যাবুলারির (পিএসি) যে ঘরে রাখা হয়, সোমবার সকালে সেটি ঝাড়পোছ করেন, ঝাঁট দেন তিনিই। তারপর অনশনে বসেন। তাঁর টিমের এক সদস্যকে উদ্ধৃত করে সংবাদ মাধ্যম বলেছে, নোংরা ঘরে রাখা হয়েছিল তাঁকে। নিজেই সেটি পরিষ্কার করেন তিনি।

XS
SM
MD
LG