অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে তালিবান ফাঁকা গুলি ছুঁড়েছে


বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে তালিবান মঙ্গলবার ফাঁকা গুলি চালায় এবং বেশ কয়েকজন সাংবাদিককে গ্রেপ্তার করে। তালিবান এক সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে এই দ্বিতীয়বার মত আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করার জন্য কঠোর কৌশল অবলম্বন করে। বিক্ষোভকারীরা পাকিস্তান দূতাবাসের বাইরে উত্তরাঞ্চলের পাঞ্জশির প্রদেশে তালিবানের আক্রমণে সহযোগিতা করার জন্য ইসলামাবাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে জড়ো হয়। তালিবানসোমবার বলেছে তারা প্রদেশটির নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করেছে নিয়ন্ত্রণ - গত মাসে গোটা আফগানিস্তান জুড়ে ক্ষিপ্র আক্রমণে তারা ক্ষমতা দখল করে নিলেও ঐ প্রদেশটি শেষ পর্য়ন্ত তাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল না।

আফগানিস্তানের পূর্ববর্তী সরকার তালিবানকে সহায়তা দেওয়ার জন্য নিয়মিতভাবে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে, তবে ইসলামাবাদ ঐ অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে আসছে। তালিবান বিরোধী বাহিনীর অন্যতম নেতা সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট আমরুল্লাহ সালেহ দীর্ঘদিন ধরে প্রতিবেশী পাকিস্তানের একজন সোচ্চার সমালোচক।

মঙ্গলবার বিক্ষোভকারীদের মধ্যে কয়েক ডজন মহিলা ছিলেন। তাদের মধ্যে কেউ কেউ পাকিস্তানের মদদপুষ্ট তালিবান যে তাদের সন্তানদের হত্যা করেছে তার জন্য শোক প্রকাশ করে পোস্টার বহন করে। এই পোস্টারে লেখা ছিল: "আমি মা। তুমি যখন আমার ছেলেকে হত্যা কর, তখন তুমি আমার দেহের একটা অংশকে হত্যা করো।"

শনিবার আফগানিস্তানের রাজধানীতে নারীরা নতুন শাসকদের কাছ সমান অধিকারের দাবিতে প্রতিবাদ মিছিল করে যা ছত্রভঙ্গ করার জন্যছদ্মবেশে তালিবান বিশেষ বাহিনীর সৈন্যরা ফাঁকা গুলি চালাতে থাকে।

মঙ্গলবার বিক্ষোভকারীরা প্রেসিডেন্টের প্রাসাদের কাছে পৌঁছানোর পর তালিবান দ্রুত এবং কঠোরভাবে সেখানে তাদের বিক্ষোভ বন্ধ করে দেয়। তারা শূন্যে গুলি চালায় এবং ঐ বিক্ষোভের সংবাদ সংগ্রহকারী বেশ কয়েকজন সাংবাদিককে গ্রেপ্তার করে। একটি ঘটনায় একজন তালিবান কালাশনিকভ রাইফেল নাড়িয়ে একজন সাংবাদিকের কাছ থেকে মাইক্রোফোন ছিনিয়ে নিয়ে ভেঙে ফেলে এবং তাকে মারধর করতে শুরু করে। পরে সাংবাদিককে হাতকড়া পরিয়ে বেশ কয়েক ঘন্টা আটক করে রাখে। প্রতিশোধের আশংকায় নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি দ্য এসোসিয়েটেড প্রেসকে বলেন , “ প্রতিবাদের খবর সংগ্রহ করার সময়ে এই নিয়ে তালিবান আমাকে তৃতীয়বারের মতো মারধর করলো। আমি আর কোন বিক্ষোভের খবর নিতে যাবো না । আমার জন্য এটা খুব কঠিন ব্যাপার”।

আফগানিস্তানের জনপ্রিয় টলো নিউজের এক সাংবাদিককে তালিবান ৩ ঘণ্টা আটক রাখে তবে তাকে মুক্তি দেওয়ার সময়ে তার সরঞ্জাম এবং বিক্ষোভের ভিডিওটির কোন ক্ষতি করা হয়নি। তাত্ক্ষণিক ভাবে তালিবানএ বিষয়ে কোন মন্তব্য করেনি।

XS
SM
MD
LG