অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বৈরুত বিস্ফোরণ তদন্তের বিচারক হিজবুল্লার প্রতিরোধের মুখে


৩রা আগস্ট ২০২১ লেবাননে বিস্ফোরণের এক বছর পূর্তি উপলক্ষে বিস্ফোরণে নিহতদের প্রতিকৃতিতে সাদা গোলাপ রেখেছিল মানুষ রয়টার্স

পর্যবেক্ষকরা বলছেন ইরান সমর্থিত শক্তিশালী হিজবুল্লাহ গ্রুপের হস্তক্ষেপের কারণে গত বছর বৈরুতে যে ব্যাপক বিস্ফোরণে ঘটে তার তদন্ত ধীর গতিতে চলছে। লেবাননের বিচারক তারেক বিতারকে তদন্ত থেকে দুইবার অপসারণের চেষ্টা করা হয়। সর্বশেষ চেষ্টা করা হয়েছিল সোমবার। তবে একটি আদালত বিতারের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ খারিজ করে দেন। হিজবুল্লাহ ক্রমাগত তাঁর এবং তিনি যে তদন্ত পরিচালনা করছেন তার বিরোধিতা করে চলেছে। পর্যবেক্ষকরা বলছেন, হিজবুল্লাহর বাধা মোকাবেলা করার জন্য প্রকৃতপক্ষে লেবাননের জন্য একটি সত্যিকারের জাতীয় ফ্রন্ট প্রয়োজন যখন লেবানন অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সংস্কার শুরু করতে যাচ্ছে।

বিতার তাঁর তদন্ত পরিচালনায় লেবাননের শক্তিশালী দলগুলো থেকে বাধার সম্মুখীন হয়েছেন। ঐ দলগুলো ২০২০ সালের আগস্ট মাসের চার তারিখে বৈরুত বন্দর বিস্ফোরণ যা ইতিহাসের অন্যতম বড় অপারমাণবিক বিস্ফোরণ বলে অভিহিত তার তদন্ত বন্ধ করার চেষ্টা করছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে প্রচুর পরিমাণে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট -যা সাধারণত সার বা বোমা তৈরিতে ব্যবহার করা হয় তা বছরের পর বছর অনিরাপদভাবে রাখা ছিল।

ঐ মামলার আসামিরা হচ্ছেন অভ্যন্তরীণ, অর্থ ও পরিবহন বিভাগের তিনজন সাবেক মন্ত্রী এবং হিজবুল্লাহর মিত্র। বিচারক বিতার তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করতে চেয়েছিলেন বলে তারা বিতারকে তদন্ত থেকে অপসারণ করার চেষ্টা করেছিল। তার অবস্থান নিরপেক্ষ বলে বিবেচিত হওয়া সত্বেও হিজবুল্লাহর প্রধান হাসান নাসরাল্লাহ বিতারকে "রাজনৈতিক" বলে অভিযোগ করেছেন। হিজবুল্লাহর নিরাপত্তা কর্মকর্তা ওয়াফিক সাফা বিচারককে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, তার আইনী কাজ দলের পছন্দ না হলে তাকে অপসারণ করা হবে। আর সেক্ষত্রে তিনি হয়তো হবেন দ্বিতীয় বরখাস্ত বিচারক।

XS
SM
MD
LG