অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ফিলিস্তিনি জঙ্গি গোষ্ঠী হামাসকে নিষিদ্ধ করেছে ব্রিটেন


ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী প্রীতি প্যাটেলকে, লন্ডনে পররাষ্ট্র ও কমনওয়েলথ অফিস এফসিওতে সিনিয়র সরকারের মন্ত্রীদের মন্ত্রিসভার বৈঠকে দেখা যাচ্ছে। ১ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ছবি-টবি মেলভিল/এপি

ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী প্রীতি প্যাটেল শুক্রবার বলেছেন যে তিনি ফিলিস্তিনি জঙ্গি গোষ্ঠী হামাসকে নিষিদ্ধ করেছেন। এই পদক্ষেপের কারণে গাজার শাসকদের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের যে অবস্থান, তার সাথে এখন যুক্তরাজ্যের অবস্থানও এখন হলো অভিন্ন।

প্যাটেল এক বিবৃতিতে বলেছেন, "হামাসের উল্লেখযোগ্য সন্ত্রাসী ক্ষমতা রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে ব্যাপক এবং অত্যাধুনিক অস্ত্র, সেইসাথে সন্ত্রাসী প্রশিক্ষণের সুবিধাও।তাই আজ আমি হামাসকে সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করার পদক্ষেপ নিয়েছি”।

স্বরাষ্ট্র দপ্তর নিশ্চিত করেছে যে, সংগঠনটিকে সন্ত্রাসী আইনের অধীনে নিষিদ্ধ করা হবে, এবং যে কেউ হামাসের প্রতি সমর্থন প্রকাশ করলে, তার পতাকা উড়ানো বা সংগঠনের জন্য সভা আয়োজন করলে আইন করালঙ্ঘন হবে। প্যাটেল আগামী সপ্তাহে পার্লামেন্টে পরিবর্তনটি উপস্থাপন করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

হামাসের রাজনৈতিক ও সামরিক শাখা রয়েছে। এটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ১৯৮৭ সালে। এটি ইসরায়েলের অস্তিত্ব এবং শান্তি আলোচনার বিরোধিতা করে এবং ফিলিস্তিনি অঞ্চলে ইসরায়েলের দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে "সশস্ত্র প্রতিরোধ" সমর্থন করে।

এতদিন পর্যন্ত ব্রিটেন শুধুমাত্র হামাসের সামরিক বাহিনী - ইজ আল-দিন আল-কাসাম ব্রিগেড নিষিদ্ধ করেছিল ।

হামাসের রাজনৈতিক কর্মকর্তা সামি আবু জুহরি বলেছেন, ব্রিটেনের পদক্ষেপ "ইসরায়েলি দখলদারিত্বের প্রতি সম্পূর্ণ পক্ষপাতিত্ব এবং ইসরায়েলি ব্ল্যাকমেইল ও আদেশের কাছে বশ্যতা।"

একটি পৃথক বিবৃতিতে, হামাস বলেছে, "সশস্ত্র প্রতিরোধ সহ দখলদারিত্ব প্রতিরোধ করা আন্তর্জাতিক আইনে বর্ণিত জনসাধারণের অধিকার।

XS
SM
MD
LG