অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কী হচ্ছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্প সমিতির নির্বাচনে?


জায়েদ খান-নিপুণ আখতার

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন ও সমিতির দুটি পদ বিশেষত সাধারণ সম্পাদকের পদের ফলাফলকে ঘিরে গত কয়েক দিন ধরে বেশ আলোচনা হচ্ছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দেশের চলচ্চিত্র তেমন কোনো আলোচনা তৈরি করতে না পারলেও শিল্পী সমিতির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বেশ আলোচনা ও বিতর্ক জন্ম দিয়ে চলেছেন অভিনেতা-অভিনেত্রীরা। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাথারণ সম্পাদক পদের ফল এখন দেশের উচ্চ আদালতের মাধ্যমে নির্ধারিত হবে। এসব ঘিরে চলচ্চিত্র পাড়ায় শুরু হয়েছে নানামুখী উত্তেজনা ও উৎকণ্ঠা।

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতিতে ভোটার সংখ্যা ও ভোটের হার


এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা ছিল ৪২৮। এর মধ্যে ভোট দিয়েছেন ৩৬৫ জন। তার মধ্যে ৪৮ জন আজীবন সদস্য। গঠনতন্ত্র অনুসারে যারা আজীবন সদস্য তারা ভোট দিতে পারলেও প্রার্থী হতে পারবেন না। কিন্তু অমীমাংসিত রয়ে গেছে সদস্য পদ স্থগিত হওয়া ১৮৪ জনের বিষয়টি। শতকরা হিসেবে ভোট পড়েছে ৮৫ দশমিক ২৮ শতাংশ।

নির্বাচনে যারা অংশ নিয়েছিলেন


চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে পূর্ণাঙ্গ প্যানেল নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল ইলিয়াস কাঞ্চন-নিপুণ আক্তার এবং মিশা সওদাগর-জায়েদ খান।


ইলিয়াস কাঞ্চন-নিপুণের প্যানেলে ছিলেন: সহসভাপতি রিয়াজ আহমেদ ও ডি এ তায়েব, সহ সাধারণ সম্পাদক সাইমন সাদিক, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহনুর, আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক নিরব হোসেন, দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক আরমান, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক মামনুন হাসান ইমন ও কোষাধ্যক্ষ পদে আজাদ খান।
এই প্যানেলের কার্যকরি পরিষদের সদস্য পদে প্রার্থী ছিলেন অমিত হাসান, ফেরদৌস, শাকিল খান, নানা শাহ, আফজাল শরীফ, সাংকো পাঞ্জা, জেসমীন, কেয়া, পরীমনি, গাঙ্গুয়া ও সীমান্ত।

অপরদিকে মিশা-জায়েদের প্যানেলে ছিলেন: সহসভাপতি মনোয়ার হোসেন ডিপজল ও রুবেল, সহ সাধারণ সম্পাদক সুব্রত, সাংগঠনিক সম্পাদক আলেকজান্ডার বো, আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক জয় চৌধুরী, দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক জে কে আলমগীর, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক জাকির হোসেন, কোষাধ্যক্ষ ফরহাদ।
এই প্যানেলের কার্যকরি পরিষদের সদস্য পদে প্রার্থী ছিলেন রোজিনা, অঞ্জনা, সুচরিতা, অরুনা বিশ্বাস, মৌসুমী, আসিফ ইকবাল, বাপ্পারাজ, আলীরাজ, নাদের খান ও হাসান জাহাঙ্গীর।

নির্বাচন কমিশন


শিল্পী সমিতির নির্বাচনে এবার নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করেন অভিনেতা পীরজাদা শহীদুল হারুন। দুজন সদস্য ছিলেন বি এইচ নিশান ও বজলুর রাশেদ চৌধুরী।


আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে ছিলেন সোহানুর রহমান সোহান। মোহাম্মদ হোসেন জেমী ও মোহাম্মদ হোসেনকে করা হয় আপিল বোর্ডের সদস্য।

আড়াল ভেঙে সামনে পপি


এবারের নির্বাচনের জায়েদ খানের বিপক্ষে প্রকাশ্যে অনেক অভিনেতা-অভিনেত্রীকে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে। এদের মধ্যে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কারজয়ী অভিনেত্রী সাদিকা পারভিন পপিও ছিলেন। পপি দীর্ঘদিন ক্যামেরার অন্তরালে ছিলেন। কিন্তু নির্বাচনের কয়েক দিন আগে পপি একটি ভিডিও বার্তায় ইলিয়াস কাঞ্চন এবং নিপুন প্যানেলকে স্বাগত জানান। নাম প্রকাশ না করে জায়েদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করেন পপি। তিনি বলেন, তার মতো তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া শিল্পী নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন চলচ্চিত্র থেকে। চিত্রনায়িকা পপির এই ভিডিও ব্যাপক ভাইরাল হয় সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সমালোচনার মুখে পড়েন জায়েদ খান।

ভোটের দিনের পরিস্থিতি


শিল্পী সমিতির এবারের (২০২২-২৪) নির্বাচন নিয়ে ছিল নানা শঙ্কা। বিএফডিসি চত্ত্বরে শিল্পীদের বিভক্ত হয়ে মিছিল ও সমাবেশের খবর গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়েছে। এই নির্বাচনের আগে দুই (ইলিয়াস কাঞ্চন-নিপুণ এবং মিশা-জায়েদ) প্যানেল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছেন। বিএফডিসি প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত শিল্পী সমিতির নির্বাচনের উত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে ঢাকার তেজগাঁও–কারওয়ান বাজার থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। তাই কয়েক স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা ছিল এ নির্বাচনে। ভোটের দিনে কোনোরকম অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই শিল্পীদের অংশগ্রহণে ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়। ভোটের দিন বিএফডিসির সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল দর্শনার্থীদের সামাল দিতে।

তবে দুপুরের দিকে সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা দুই প্রার্থী নিপুণ এবং জায়েদ জড়িয়ে পড়েন অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে। জায়েদ খান টাকা দিয়ে ভোট কিনছেন এমন অভিযোগ তুলে নিপুণ নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ করেন। জায়েদ খান অভিযোগ অস্বীকার করেন।

ভোটের ফলাফলের জন্য দীর্ঘ অপেক্ষা


শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) সকাল ৯টা ১২ মিনিট থেকে শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ শেষ হয় বিকেল ৬টা ১০ মিনিটে। কিন্তু ফলাফলের জন্য দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়। ৩৬৫ জন ভোটারের ভোট গণনা করতে পুরো রাত পার হয়ে যায়। ভোটের ফলাফল প্রকাশ করা হয় পরদিন, অর্থাৎ ২৯ জানুয়ারি, শনিবার ভোর ৫টা ৫০ মিনিটে।

নির্বাচনে বিজয়ী যারা


চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ২০২২-২৪ মেয়াদের জন্য সভাপতি পদে জয়ী হয়েছেন অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন। সাধারণ সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন জায়েদ খান। নির্বাচনের পরদিন ২৯ জানুয়ারি শনিবার, ভোর ৫টা ৫০ মিনিটে আনুষ্ঠানিক ফলাফল ঘোষণা করা হয়। ঘোষণা করেন শিল্পী সমিতির নির্বাচনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার পীরজাদা শহীদুল হারুন। ইলিয়াস কাঞ্চন ও জায়েদ খান ভোট পেয়েছেন যথাক্রমে ১৯১ ও ১৭৬টি। অপরদিকে সভাপতি পদে মিশা সওদাগর ১৪৮টি এবং নিপুন ১৬৩টি ভোট পেয়েছেন।

সহসভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছেন ডিপজল ও রুবেল। সহসাধারণ সম্পাদক পদে সাইমন সাদিক জয়ী হয়েছেন। সাংগঠনিক সম্পাদক পদে জয়ী হয়েছেন অভিনেত্রী শাহানূর। সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক পদে মামনুন ইমন জয়ী হয়েছেন। আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন জয় চৌধুরী। দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন আরমান।

এ ছাড়া কার্যকরি সদস্য পদে জয়ী হয়েছেন মিশা-জায়েদ প্যানেল থেকে অঞ্জনা, রোজিনা, অরুণা বিশ্বাস, সুচরিতা, আলীরাজ, মৌসুমী, চুন্নু আর কাঞ্চন-নিপুণ প্যানেলের ফেরদৌস, কেয়া, জেসমিন ও অমিত হাসান।

নিপুণের যত অভিযোগ


নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদের প্রার্থী নিপুণ প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বিরুদ্ধে অশ্লীল আচরণের করার অভিযোগ করেন। ৩০ জানুয়ারি ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে নিপুণ বলেন, “সকালবেলা তিনি (পীরজাদা শহীদুল হারুন) আমার দুই গালে দুইটা কিস চাচ্ছে। সেখানে আমার দুইজন নারী প্রার্থী ছিল। আমার উচিত ছিল তার ওই দুই গালে দুইটা চড় মারা। যেটা আমি করি নাই। উনি যখন এই কথাটা বলেছে তখন আমার ওই দুই নারী প্রার্থী দেখেছে। তখনি আমার চড় মেরে নির্বাচন বন্ধ করে দেওয়া উচিত ছিল।”

এ ছাড়া জায়েদ খান টাকা দিয়ে ভোট কিনছেন এমন অভিযোগ তুলে ফেসবুকের বেশ কিছু স্ক্রীনশট উপস্থাপন করেন নিপুণ। তিনি নিজের জীবনের নিরাপত্তায় থানায় সাধারন ডায়েরি করেছেন বলেও জানান।

অভিযোগ অস্বীকার জায়েদ ও হারুনের


জায়েদ খান বলেছেন, অভিযোগটি ভুয়া। তিনি সাইবার ক্রাইম ইউনিটে মামলা করবেন বলেও হুমকি দিয়েছেন। তার বিরুদ্ধে “তথ্য-সন্ত্রাস” করা হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

অন্যদিকে নির্বাচনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী পীরজাদা শহীদুল হারুন সংবাদমাধ্যমে তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেছেন, “অভিযোগটা মিথ্যা, এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। দুষ্টুমি বা মজা করেও আমি এমন কোন কথা বলিনি।”

আপিল বোর্ডের সিদ্ধান্তে বদলে গেল ফলাফল


এদিকে জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিল করে নিপুণ আক্তারকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করেছে নির্বাচনের জন্য গঠিত সংগঠনটির আপিল বোর্ড। নির্বাচনের পর জায়েদ খানের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনেছিলেন নিপুণ আক্তার। সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশনা এলে আপিল বোর্ড অভিযোগগুলো আমলে নিয়ে বিএফডিসিতে বৈঠকে বসে। বৈঠকের পর আপিল বোর্ডের প্রধান চলচ্চিত্র পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিল করে নিপুণ আক্তারকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করেন।

সোহানুর রহমান সোহান বলেন, নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী নির্বাচনের দিনই ফল ঘোষণার কথা। কিন্তু সেটি করা হয়েছে পরদিন ২৯ জানুয়ারি, যা বিধিবহির্ভূত। অভিযোগ প্রমাণিত হলে প্রার্থিতা বাতিলের নিয়ম আছে। অভিযোগের প্রমাণ পেয়ে জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিল ঘোষণা করা হলো।

শপথ পড়ালেন মিশা সওদাগর


৬ ফেব্রুয়ারি শপথ গ্রহণের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে শিল্পী সমিতির ২০২২-২০২৪ মেয়াদের দায়িত্ব বুঝে নেন সভাপতি পদে জয়ী ইলিয়াস কাঞ্চন ও সাধারণ সম্পাদক নিপুণ।

আরও শপথ নেন কাঞ্চন-নিপুণ প্যানেলের বিজয়ী সহ সাধারণ সম্পাদক সাইমন সাদিক, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক ইমন, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহনূর, দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক আরমান, কোষাধ্যক্ষ আজাদ খান। ছিলেন কার্যকরি সদস্যপদে বিজয়ী অমিত হাসান, ফেরদৌস, জেসমিন, কেয়া। নবনির্বাচিত সভাপতিকে শপথ বাক্য পাঠ করান পরাজিত প্রার্থী ও আগে থেকেই সভাপতির দায়িত্বপালনকারী মিশা সওদাগর।

উচ্চ আদালতে জায়েদ খান


এদিকে শিল্পী সমিতির নির্বাচনের আপিল বোর্ডের সিদ্ধান্তের পরে নিজের পদ ফিরে পেতে উচ্চ আদালতে গিয়েছেন জায়েদ খান। সোমবার (৭ ফেব্রুয়ারি) জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিল করে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে নিপুণ আক্তারকে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জয়ী করে আপিল বোর্ডের দেওয়া সিদ্ধান্ত স্থগিত করেন হাইকোর্ট। এরপরে জায়েদ বলেন, তিনি ন্যায়বিচার পেয়েছেন।

হাইকোর্টের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে নিপুণের আবেদন

জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিল করে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনের আপিল বোর্ডের সদ্ধান্ত স্থগিত করে হাইকোর্টের দেওয়া আদেশের বিরুদ্ধে চিত্রনায়িকা নিপুণ আক্তার আপিল করেছেন। তার আপিল আবেদনের বিষয়ে শুনানি বুধবার, ৯ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে।

মঙ্গলবার (৮ ফেব্রুয়ারি) নিপুণের আবেদনের বিষয়টি উপস্থাপন করা হলে আপিল বিভাগের বিচারপতি ওবায়াদুল হাসানের চেম্বারজজ আদালত এ বিষয়ে শুনানির জন্য এই দিন ধার্য করেন।

XS
SM
MD
LG