অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশে আটকে পড়া বিহারীদের জীবনমান উন্নয়নে সরকার পরিকল্পনা করছে—প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। (ছবি- ইউএনবি)

বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মানবিক বিবেচনায় তার সরকার বাংলাদেশে আটকে পড়া বিহারীদের উন্নত জীবন দেওয়ার পরিকল্পনা করছে। যদিও তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতার পরে পাকিস্তানের নাগরিকত্ব বেছে নিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, “আমরা একজন মানুষকে মানুষ হিসেবে দেখতে চাই। হয়তো তারা এখানে থাকতে চায়নি, কিন্তু তারা এখন কোথায় যাবে? তাদের পরবর্তী প্রজন্ম এই দেশে জন্ম নিয়েছে। আমাদেরই তাদের জন্য কিছু করতে হবে।”

রবিবার (৬ মার্চ) ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৪৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাঁচকুড়া হাইস্কুল মাঠে আয়োজিত ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নবনির্মিত ১৮টি ওয়ার্ডের সড়ক অবকাঠামো ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা নির্মাণ ও উন্নয়ন (ফেজ-১) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, “তারা পাকিস্তানে যেতে চেয়েছিল এবং স্বাধীনতার পর পাকিস্তানি নাগরিকত্ব নিতে চেয়েছিল। কিন্তু পাকিস্তান কখনই তাদের গ্রহণ করেনি।”

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “অনেক প্রতিষ্ঠান তাদের জন্য বিপুল পরিমাণ অর্থ সংগ্রহ করেছে। কিন্তু তাদের ভাগ্যের কোনো পরিবর্তন হয়নি।”

শেখ হাসিনা বলেন, “তারা এখন তাদের সন্তান ও নাতি-নাতনি নিয়ে বাংলাদেশে বসবাস করছে। তারা জেনেভা ক্যাম্পের ছোট জায়গায় অমানবিক জীবনযাপন করছে।”

তিনি বলেন, “বিহারীরা অনেক পরিশ্রমী এবং তারা কারুশিল্পে অনেক দক্ষ।…এ জন্য আমি তাদের জন্য উন্নত বাসস্থানের ব্যবস্থা করতে চেয়েছিলাম এবং যে কাজে তাদের দক্ষতা আছে, তাদেরকে সে কাজেই লাগাতে চেয়েছিলাম; যাতে তারা জীবিকা নির্বাহ করতে পারে।”

তিনি বলেন, “ঢাকায় এটা করা যায় না, তার জন্য দরকার একটা সুবিধাজনক ভালো জায়গা। যেখানে শিল্প আছে বা তাদের চাকরির সুযোগ আছে।”

শেখ হাসিনা বলেন, “তাদের কর্মসংস্থানের জন্য আমাদের সুযোগ তৈরি করতে হবে। আমি চাই, তারা যেন একটি সুন্দর মানবিক জীবন পায়।”

রাজধানী ঢাকায় কারও জমি বা ফ্ল্যাট না থাকলে জীবন অর্থহীন বলে দেশের মানুষের মানসিকতারও সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, “এই ধরনের চিন্তাভাবনা অবশ্যই মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলা উচিত।”

দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থার অনেক উন্নতি হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, “আমরা রেল, সড়ক ও বিমান যোগাযোগের উন্নয়ন করছি। লোকজন তাদের কাজ শেষ করে সহজেই তাদের বাড়িতে ফিরে যেতে পারেন। আমরা পরিকল্পিতভাবে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করছি।”

শেখ হাসিনা বলেন, তিনি তার ব্যক্তিগত উদ্যোগে গুলশান এলাকায় ১০ বিঘা জমির একটি অংশ বের করেছেন, যেখানে একটি খেলার মাঠ তৈরি করা হবে।

শেখ হাসিনা আবারও দেশের জনগণকে বিদ্যুৎ ও পানি ব্যবহারে সচেতন হওয়ার অনুরোধ করেন, কারণ সরকার এই ইউটিলিটিগুলোতে ভর্তুকি হিসেবে বিপুল পরিমাণ অর্থ দিচ্ছে।

তিনি বলেন, “আমরা বিশাল ভর্তুকি দিচ্ছি, এগুলো সব জনগণের ট্যাক্সের টাকা।…জনগণের জীবনমান উন্নয়নে সরকার ভর্তুকি দিচ্ছে।”

অনুষ্ঠানে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

সামুদ্রিক সম্পদ আহরণে মেরিন ক্যাডেটদের ভূমিকা চান শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, টেকসই উন্নয়নে সামুদ্রিক সম্পদ ব্যবহার করে মেরিন ফিশারিজ একাডেমির ক্যাডেটদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা সরকারকে এসডিজি-১৪ অর্জনে সহায়তা করবে।

তিনি বলেন, “টেকসই উন্নয়নের জন্য সামুদ্রিক সম্পদ ব্যবহার করে এসডিজি-১৪-এর লক্ষ্য অর্জনে সরকার বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। আমি আশা করি সরকারের এই লক্ষ্য অর্জনে আপনাদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।”

রবিবার (৬ মার্চ) মেরিন ফিশারিজ একাডেমির ৪১তম ব্যাচের “মুজিববর্ষের পাসিং আউট প্যারেড” অনুষ্ঠানে দেওয়া ভার্চ্যুয়াল এক ভাষণে শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, “আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, কঠোর পরিশ্রম, অধ্যবসায় ও নিবিড় প্রশিক্ষণের মাধ্যমে অর্জিত এই জ্ঞান আপনাদের ভবিষ্যতের কাজে সহায়ক হবে।…আমি আশা করি এই নিরন্তর পরিবর্তনশীল এবং প্রতিযোগিতামূলক আধুনিক বিশ্বে টিকে থাকার জন্য আপনারা ইতিমধ্যে আপনাদের অর্জিত জ্ঞান দিয়ে নিজেকে প্রস্তুত করেছেন।”

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “কর্মজীবনে উন্নতির মূল ভিত্তি হলো কঠোর পরিশ্রম, সময়ানুবর্তিতা, সততা, কর্মদক্ষতা, মূল্যবোধ এবং দেশ ও জাতির প্রতি নিষ্ঠা।”

শেখ হাসিনা বলেন, “আমি মনে করি, আপনারা এই গুণাবলী অর্জন করে ভবিষ্যতের কর্মক্ষেত্রে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করবেন।”

ভারত ও মিয়ানমার থেকে বিস্তীর্ণ সমুদ্র এলাকা পুনরুদ্ধারের কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, “আওয়ামী লীগ সরকার সুনীল অর্থনীতির (ব্লু ইকোনমি) ওপর বিশেষ জোর দিয়েছে এবং সমুদ্র থেকে সম্পদ আহরণ বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের এক নতুন দ্বার উন্মোচন করেছে।”

তিনি বলেন, “আমি আশা করি আপনাদের সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে, সামুদ্রিক সম্পদ আহরণ আরও উন্নত হবে, যা সরকারের ব্লু ইকোনমির লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করার পাশাপাশি আমাদের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করবে।”

অনুষ্ঠানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মোহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী বক্তব্য দেন।

XS
SM
MD
LG