অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পুরস্কার বিজয়ী আমেরিকান সাংবাদিক ইউক্রেনে নিহত


ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার প্রতিবাদে হোয়াইট হাউজের কাছে প্রতিবাদের সময় আমেরিকান সাংবাদিক ব্রেন্ট রেনোসহ নিহতদের ছবি স্বাক্ষর প্রদর্শন করা হয়। মার্চ ১৩ ২০২২। (ছবি- এপি)

ব্রেন্ট রেনো নামের পুরস্কার বিজয়ী একজন আমেরিকান সাংবাদিককে রবিবার ইউক্রেনে গুলি করে হত্যা করা হয়। একই ঘটনায় তার সহকর্মীও আহত হয়েছেন। একটি চেক পয়েন্টের কাছে তাদের গাড়ির উপর গুলি চালানো হয়।

ইউক্রেনের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক জানিয়েছে যে, রেনো কিয়েভের নিকটবর্তী আরপিন নামক এলাকায় নিহত হন। এলাকাটি সাম্প্রতিক দিনগুলোতে রাশিয়ার ভারী গোলাবর্ষণের শিকার হয়।

৫০ বছর বয়সী এই চলচ্চিত্র নির্মাতা আরকানস’ অঙ্গরাজ্যের লিটল রক এলাকার বাসিন্দা। তিনি শরণার্থীদের উপর একটি ডকুমেন্টারী নির্মাণের জন্য উপাদান সংগ্রহ করতে ইউক্রেনে গিয়েছিলেন বলে দ্য অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস জানায়।

রেনো কলম্বিয়ার বংশোদ্ভূত আমেরিকান ফটোসাংবাদিক হুয়ান আরেডনডো-কে সাথে নিয়ে একটি গাড়িতে করে যাওয়ার সময়ে তাদের উপর গুলি চালানো হয়।

ঘটনাটিতে আহত আরেডনডো, কিয়েভের একটি হাসপাতালে ইতালীর ফটোসাংবাদিক আনালিসা কামিলি কর্তৃক ধারণকৃত একটি ভিডিওতে ঘটনাটির বর্ণনা দেন।

অনলাইনে প্রচারিত ভিডিওটিতে আরেডনডো বলেন, “আমরা আরপিনে প্রথম সেতুটি পার হই, আমরা ছেড়ে যেতে থাকা অন্যান্য শরণার্থীদের ছবি তুলতে যাচ্ছিলাম”। তিনি আরও বলেন, “আমরা চেকপয়েন্টটি পার হই, এবং তারা আমাদের লক্ষ্য করে গুলি ছুড়তে থাকে”।

আরেডনডো জানান যে, রেনোর ঘাড়ে গুলি লাগে। তিনি এবং রেনো, দু’জনেই ২০১৮-২০১৯ সালে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের নিম্যান ফাউন্ডেশন ফর জার্নালিজম-এর ফেলো ছিলেন।

কিয়েভের আঞ্চলিক পুলিশ একটি বিবৃতি প্রকাশ করে জানিয়েছে যে, রাশিয়ার সৈন্যরা ঐ সাংবাদিকদের উপর গুলি চালিয়েছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রক, জাতিসংঘ এবং সাবেক সহকর্মীরা রেনোর প্রতি রবিবার শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রকের মুখপাত্র নেড প্রাইস আক্রমণটিকে “ক্রেমলিনের নির্বিচার কর্মকাণ্ডের আরেকটি জঘন্য উদাহরণ” হিসেবে ব্যাখ্যা করেছেন।

ইউনেস্কোর মহাপরিচালক, অড্রে আজুলে হত্যাকান্ডটির নিন্দা জানান এবং জোর দিয়ে বলেন যে গণমাধ্যমকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করা উচিৎ না।

নিউ ইয়র্ক ভিত্তিক কমিটি টু প্রোটেক্ট জার্নালিস্টস বলে যে, রেনো ও আরেডনডো’র উপর আক্রমণটি “আন্তর্জাতিক আইনের একটি লঙ্ঘন”।

রেনো একাধিক সংবাদ সংস্থার জন্য কাজ করতেন। সেগুলোর মধ্যে এইচবিও, দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস, ভাইস এবং পিবিএস রয়েছে।

রেনো এবং তার ভাই ক্রেইগ রেনো, ২০১৪ সালে “লাস্ট চান্স হাই” নামের তাদের এইচবিও-এর একটি সিরিজের জন্য একটি পিবডি পুরস্কার পান। সিরিজটি শিকাগোর ওয়েস্ট সাইড এলাকার একটি বিদ্যালয়ের ওপর নির্মিত হয়েছিল।

XS
SM
MD
LG