অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইরানের সাথে পারমাণবিক চুক্তি পুনর্বহালের সম্ভাবনার প্রেক্ষাপটে মিত্রদের আবার আশ্বস্ত করলেন ব্লিংকেন


জেরুজালেমে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন (বামে) এবং ইসরায়েলের প্রেসিডেন্ট আইজ্যাক হারজোগ। রবিবার, ২৭ মার্চ, ২০২২।

ইরানের সাথে বিশ্বশক্তিধর দেশগুলোর আন্তর্জাতিক পারমাণবিক চুক্তির সম্ভাব্য পুনর্বহালের আগে, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন বিষয়টিতে সন্দিহান ইসরায়েল ও মিত্র আরব দেশগুলোকে তাদের নিরাপত্তার বিষয়ে, বাইডেন প্রশাসনের অঙ্গীকার সম্পর্কে আবার আশ্বস্ত করার চেষ্টা করেন।

ইসরায়েল ও চারটি আরব দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাথে তার বৈঠকটির কিছু সময় আগে ব্লিংকেন মন্তব্যগুলো করেন। বৈঠকটিতে ইরানের পারমাণবিক চুক্তির বিষয়টি প্রাধান্য পাওয়ার আশা করা হচ্ছে। ইসরায়েলসহ তাদের বেশ কয়েকটি প্রতিবেশী দেশই চুক্তিটির ঘোর বিপক্ষে। তাদের বিশ্বাস যে এমন চুক্তি, ইরানকে আরও শক্তিশালী ও সমৃদ্ধশালী করে তুলবে।

ইসরায়েলের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে একটি সংবাদ সম্মেলনে ব্লিংকেন উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, “যখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো আসে, তখন আমরা চোখে চোখ রেখে কথা বলি”। তিনি আরও বলেন, “আমরা দুইজনই অঙ্গীকারবদ্ধ, দুইজনই সঙ্কল্পবদ্ধ যে ইরান কখনোই পারমাণবিক অস্ত্র হাতে পাবে না”

ব্লিংকেন বলেন তিনি বিশ্বাস করেন যে পারমাণবিক চুক্তিটি পুনর্বহাল করাটা “ইরানের কর্মসূচিটি যেই বাক্সে বন্দী ছিল সেটিকে আবারও সেখানে ফেরত পাঠানোর সর্বোৎকৃষ্ট পন্থা”। তিনি আরও বলেন, “ইরান যাতে কখনও পারমাণবিক অস্ত্র না পায়, সেই মূলনীতিটির প্রতি আমাদের অঙ্গীকার অবিচল রয়েছে”।

অঞ্চলটি জুড়ে ইরানের “আগ্রাসী আচরণ” বাধাগ্রস্ত করতে ইসরায়েলের সাথে সহযোগিতার বিষয়েও অঙ্গীকার করেন তিনি।

তবে এটি এখনও পরিষ্কার নয় যে, পারমাণবিক চুক্তিটি কবে বা আদৌ পুনর্বহাল হবে কিনা। কিন্তু এমন ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছে যে সেটি খুব দ্রুতই হতে পারে, যদিও শেষ মুহুর্তে সেটি বেশ কয়েকটি বাধার সম্মুখীন হয়েছে। সেগুলোর মধ্যে একটি হল, ইরানের ইসলামিক রেভোলিউশনারি গার্ড কোর-কে “বিদেশী সন্ত্রাসী সংগঠন” হিসেবে যে যুক্তরাষ্ট্র আখ্যায়িত করেছে, সেটি প্রত্যাহার করে নেওয়ার ইরানের দাবি।

XS
SM
MD
LG