অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পূর্ব ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র ও মিত্ররা অর্থনৈতিক ও সামরিক চাপ জোরদার করছে


পূর্ব ইউক্রেনের ক্র্যামাটর্স্কের একটি কারখানায় রাশিয়ার বোমা হামলার পরে ধ্বংসপ্রাপ্ত একটি ট্রাক থেকে উদ্ধারকৃত একটি মৃতদেহ কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে। ১৯ এপ্রিল ২০২২

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মঙ্গলবার (১৯ এপ্রিল) বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র ও নেটো মিত্ররা মস্কোর ওপর ক্রমবর্ধমান চাপ প্রয়োগ করছে। ওই একই দিনে রাশিয়ার কর্মকর্তারা পূর্ব ইউক্রেনে একটি নতুন হামলার ঘোষণা দেন।

“সাংবাদিকেরা সর্বদা আমাকে প্রশ্ন করেন, সঙ্গত কারণে, আমি কেন সবসময় বিশ্ব নেতাদের সঙ্গে ফোনে কথা বলি, তাদের সংগঠিত রাখার চেষ্টা করি”, বাইডেন মঙ্গলবার নিউ হ্যাম্পশায়ারে ব্রিটেন, কানাডা, ইউরোপীয় কমিশন, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, নেটো, পোল্যান্ড ও রোমানিয়ার নেতাদের সঙ্গে সকালের ফোন কল সম্পর্কে বলেন। “আমি যা করেছি তার মধ্যে একটি হলো, আমি অনুরোধ করেছি এবং অন্য অনেক দেশকে তাদের [কৌশলগত] মজুদ থেকে তেল সরবরাহ করতে রাজি করাতে পেরেছি”।

হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি বলেছেন, বাইডেন ও বিশ্ব নেতারা কিয়েভকে আরও গোলাবারুদ এবং সুরক্ষা সহায়তা দেওয়ার বিষয়েও কথা বলেছেন।

রাশিয়া মঙ্গলবার ঘোষণা করেছে যে, তারা দনবাস অঞ্চলজুড়ে বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে বোমাবর্ষণের মাধ্যমে পূর্ব ইউক্রেনের নিয়ন্ত্রণের জন্য নতুন আক্রমণ শুরু করেছে। তবে ইউক্রেন বলেছে যে, তারা অঞ্চলটি রক্ষা করছে এবং প্রাথমিক কিছু আক্রমণ প্রতিহত করেছে।

গত সপ্তাহে বাইডেন যে ৮০০ মিলিয়ন ডলারের সামরিক সহায়তা অনুমোদন করেছিলেন, তার কিছু অংশ ইতিমধ্যে ইউক্রেনে পৌঁছেছে। একজন প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা বলেন, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আরও অর্ধ ডজন বা তার বেশি ফ্লাইট ইউক্রেনে অবতরণ করবে।

লুহানস্কের গভর্নর বলেছেন, পূর্বাঞ্চলীয় শহর ক্রেমিনা এখন রুশ বাহিনীর “নিয়ন্ত্রণে” রয়েছে। এর ফলে রাশিয়ার দনবাস অঞ্চলের রাজধানী ক্র্যামাটর্স্কের দিকে অগ্রসর হওয়া সহজ হতে পারে।

কিন্তু ইউক্রেন বলেছে, তারা বেশ কয়েকটি যুদ্ধে সাতটি ভিন্ন রুশ হামলা প্রতিহত করেছে এবং ১০টি ট্যাংক ও ১৮টি সাঁজোয়া ইউনিট ধ্বংস করেছে।

দনবাস অঞ্চলের মধ্যে রয়েছে লুহানস্ক ও দোনেৎস্ক, এই দুটি অঞ্চল ইতিমধ্যেই আংশিকভাবে রুশ-সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দখলে রয়েছে, সঙ্গে রয়েছে দক্ষিণে অবরুদ্ধ বন্দর শহর মারিউপোল।

মস্কো মারিউপোলের একটি ইস্পাত কারখানায় লুকিয়ে থাকা ইউক্রেনীয় বাহিনীর আত্মসমর্পণের দাবি অব্যাহত রেখেছে।

অর্থনৈতিক চাপ জোরদার হচ্ছে

এদিকে, জেন সাকি বলেছেন, ওয়াশিংটন এই সপ্তাহে আরও অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের কথা বিবেচনা করছে।

“সেখানে থাকতে পারে”, তিনি এক প্রশ্নের জবাবে বলেন। "আমি মনে করি যে আমরা এখনো ... তৈরি করছি, ভাবছি এবং অতিরিক্ত নিষেধাজ্ঞার জন্য একটি প্রক্রিয়া শুরু করছি, তবে কিছু বিষয় বিবেচনাধীন রয়েছে, হ্যাঁ”।

বাইডেন মঙ্গলবার বলেছেন, নেটো মিত্ররা আগামী ছয় মাসের জন্য প্রতিদিন ২৪০ মিলিয়ন ব্যারেল তেল ছাড়তে সম্মত হয়েছে। এই পদক্ষেপের ফলে, বাইডেন বলেন, “[রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির] পুতিনের ইউরোপে এবং আমেরিকাসহ ইউরোপ ও সাড়া বিশ্বব্যাপী আমেরিকার মিত্রদের বিরুদ্ধে জ্বালানি শক্তিকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করার ক্ষমতাকে প্রতিহত করবে”।

ডেনমার্কে প্রধানমন্ত্রী মেটে ফ্রেডেরিকসেন বলেছেন, তার দেশ যত দ্রুত সম্ভব রাশিয়ার গ্যাস আমদানি বন্ধ করবে।

জেলেন্সকি ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোকে রাশিয়া থেকে জ্বালানি আমদানি বন্ধ করার এবং পশ্চিমা দেশগুলোকে রাশিয়ার তেল শিল্পকে অনুমোদনের বিনিময়ে হামলা বন্ধ করার জন্য চাপ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

যদিও কিছু নেতা আমদানি কমাতে বা বন্ধ করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। তবে তারা তাদের নিজস্ব অর্থনীতিতে হঠাৎ ব্যবহার কমানোর প্রভাব সম্পর্কে আশঙ্কার কথাও বলেছেন।

[এই প্রতিবেদনের জন্য কিছু তথ্য দ্য অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস, রয়টার্স ও এজেন্সি ফ্রান্স-প্রেস থেকে নেওয়া হয়েছে]

XS
SM
MD
LG