অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রমজান মাসে আফগান মসজিদ ও স্কুলে হামলার নিন্দা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র


২১ এপ্রিল, ২০২২-এ মাজার-ই-শরীফে এক বোমা বিস্ফোরণে ১৪ জন নিহত হওয়ার পরে শিয়া সেহ দোকান মসজিদের একটি সাধারণ দৃশ্য।

আফগানিস্তানের মসজিদ এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বেসামরিক নাগরিক ও শিশুদের ওপর হওয়া বোমা হামলার নিন্দা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, “রমজানের মাঝামাঝি সময়ে এমন ঘটনা আমাদের জন্য অত্যন্ত উদ্বেগের বিষয়।“ আফগান নারী, শিশু এবং দুর্বল জনগোষ্ঠীকে লক্ষ্যবস্তু করা ‘অমানবিক’, ‘অন্যায়’ এবং ‘অগ্রহণযোগ্য’।

আফগানিস্তানের তালিবান কর্তৃপক্ষ বলেছে, গত শুক্রবার উত্তর-পূর্ব কুন্দুজ প্রদেশে মুসল্লিতে পরিপূর্ণ এক মসজিদের ভেতরে বোমা বিস্ফোরণে শিশুসহ অন্তত ৩৩ জন মুসল্লি নিহত হয়েছেন।

তাৎক্ষণিকভাবে কেউ এ হামলার দায় স্বীকার করেনি।তবে কর্মকর্তারা সন্দেহ করছেন যে, এ রক্তপাতের পেছনে ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদের হাত থাকতে পারে।

আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় শহর মাজার-ই-শরীফের একটি শিয়া মুসলিম মসজিদে বোমা বিস্ফোরণের একদিন পর এবং কাবুলের মুমতাজ শিক্ষা কেন্দ্র এবং আব্দুল রহিম শীদ স্কুলে হামলার কয়েকদিন পরে এই মারাত্নক হামলার ঘটনা ঘটে।

সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ দূত রিনা আমিরি ভয়েস অফ আমেরিকার পররাষ্ট্র মন্ত্রক বিষয়ক ব্যুরো প্রধান নাইকি চিং-এর সাথে আফগানিস্তানে নারী,বালিকা এবং মানবাধিকার বিষয়ে কথা বলেছেন।

তিনি বলেন, সপ্তম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির মেয়েদের স্কুল গমনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ না করার প্রতিশ্রুতি ২৩ মার্চ তালিবান প্রত্যাহার করে। এ সিদ্ধান্তের জন্য তালিবানকে “দৃঢ়ভাবে জবাবদিহি করা উচিত।

মেয়েদের শিক্ষার ওপর তালিবানের নিষেধাজ্ঞার ফলে যুক্তরাষ্ট্রের দ্বারা জব্দকৃত আফগান অর্থ ফেরত দেয়ার সম্ভাবনা আরও কমে গেছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে আমিরি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র তালিবানকে স্পষ্ট করে দিয়েছে যে, “মেয়েদের স্কুলে যাওয়ার অধিকারসহ আফগান জনগণকে তালিবানের দেয়া স্পষ্ট প্রতিশ্রুতি তাদেরকে বাস্তবায়ন করতে হবে।“

XS
SM
MD
LG