অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সুবলং চ্যানেলে তীব্র স্রোত: কাপ্তাই হ্রদে লঞ্চ চলাচল বন্ধ


কাপ্তাই হ্রদ

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সুবলং চ্যানেলে পানির তীব্র স্রোতের কারণে, বাংলাদেশের কাপ্তাই হ্রদে লঞ্চ চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে কৃর্তপক্ষ। সোমবার (২০ জুন) সকাল থেকে রাঙ্গামাটির অন্তত ছয়টি নৌ-রুটে যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে।

রবিবার (১৯ জুন) দিবাগত রাতে লঞ্চ মালিকদের সংগঠন, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল যাত্রী পরিবহন সংস্থা রাঙ্গামাটি জোন-এর পক্ষ থেকে এই সিদ্ধান্ত দেয়া হয়।

যাত্রীবাহী লঞ্চের মালিক গিয়াস উদ্দিন আদর জানান, “পরিস্থিতির উন্নতি হলে, মঙ্গলবার (২১ জুন) এই পথে নৌযান চলাচল স্বাভাবিক হওয়ার কথা রয়েছে। তবে সিদ্ধান্ত হবে পরিস্থিতি বিবেচনা করে।”

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল ও যাত্রী পরিবহন সংস্থার রাঙ্গামাটি জোনের শীর্ষকর্মকর্তা মো. মঈনুদ্দীন সেলিম জানান, “গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টির কারণে, কাপ্তাই হ্রদের পানি বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি, উজান থেকে নেমে আসা ঢলে সুবলং চ্যানেলে তীব্র স্রোতের সৃষ্টি হয়েছে। এ কারণে লঞ্চ চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে। তাই, সোমবার থেকে রাঙ্গামাটির সব রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকবে। প্রচন্ড স্রোতের কারণে দুর্ঘটনার ঝুঁকি থাকায়, এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার স্রোতের পরিস্থিতি দেখে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।”

এদিকে, পাহাড়ি ঢলে বাঘাইছড়ি, জুরাছড়ি, বরকল এর নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। চার দিন পর বৃষ্টিপাত কিছুটা কমে এসেছে। উপজেলাগুলোতে জরুরি ভিত্তিতে আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে।

অন্যদিকে, রাঙ্গামাটিতে পাহাড় ধসের আশঙ্কায়, প্রাথমিকভাবে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শহরে ২৮টি ঝুঁকিপুর্ণ এলাকা চিহ্নিত করে, শহরের ১০টি আশ্রয় কেন্দ্রে এক হাজারের বেশি মানুষকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। প্রবল বর্ষণে রাঙ্গামাটি-চট্টগ্রাম সড়কের বিভিন্ন অংশে পাহাড় ধস ও সড়কে ভাঙন দেখা দিয়েছে। রাঙ্গামাটি-চট্টগ্রাম সড়ক স্বাভাবিক রাখতে, সড়ক ও জনপদ বিভাগের কর্মীরা কাজ করে যাচ্ছে।

XS
SM
MD
LG