অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাইডেনের আসন্ন সফরের প্রস্তুতিস্বরূপ সৌদি যুবরাজের আঞ্চলিক ঝটিকা সফর


তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিজেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান (ডানদিকে), এবং সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান আঙ্কারায় একটি স্বাগত অনুষ্ঠানের সময় করমর্দন করছেন। ২২শে জুন, ২০২২।

সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান বুধবার তুরস্ক জর্ডান এবং এর এক দিন আগে মিশর সফর করেন। ওইসব দেশে আলোচনার সময় সফরকারী রাষ্ট্রপ্রধান হিসাবে তাঁকে বিশেষভাবে সম্মানিত করা হয়।

কায়রোতে, তিনি মিশরের শীর্ষ নেতাদের সাথে দেখা করেন। এসময় তিনি ১৪টি পৃথক পৃথক, মোট প্রায় ৭৭০ কোটি ডলারের বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষর করেন। সৌদি আরব জর্ডানেরও শীর্ষ বিনিয়োগকারী এবং দেশটিতে তাঁর এই সফর সেই অবস্থানকে আরও শক্তিশালী করেছে।

মোহাম্মদ বিন সালমান এর এই আঞ্চলিক সফর প্রত্যাশিতই ছিল, তবে এর সঠিক সময়টি তার ৮৬ বছর বয়সী পিতা বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজের নাজুক শরীরের উপর নির্ভরশীল ছিল।

সৌদি যুবরাজের জর্ডান এবং তুরস্ক সফর, রিয়াদ এবং ঐ দুটি প্রধান আঞ্চলিক রাষ্ট্রের মধ্যে ব্যবসায়িক এবং রাজনৈতিক উভয় ধরণের সম্পর্ককেই প্রতিফলিত করে। বিশ্লেষকরা বলছেন, ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক, ইয়েমেনের পরিস্থিতি এবং আঞ্চলিক প্রতিরক্ষা বিষয়গুলো আলোচনার অংশ ছিল। তবে তাঁর ইরাক সফরের কথা থাকলেও, রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা এবং নতুন সরকার গঠনে অক্ষমতার কারণে শেষ পর্যন্ত তা স্থগিত করা হয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

মিশরের রাজনৈতিক সমাজবিজ্ঞানী সাইদ সাদেক ভিওএ-কে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ওই অঞ্চল সফরের এক মাস আগে এবং ইরানের পারমাণবিক সক্ষমতা নিয়ে ক্রমবর্ধমান উদ্বেগের মধ্যে মোহাম্মদ বিন সালমান-এর এই সফর বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ।

সাদেক আরও বলেন, রিয়াদ লোকচক্ষুর অন্তরালে ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক মজবুত করবে বলে আশা করা হচ্ছে, যদিও তাতে দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক জনসম্মুখে উপস্থাপনের কোনো সম্ভাবনা নেই।

প্যারিস বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক খাত্তার আবু দিয়াব ভিওএ-কে বলেছেন, বিন সালমানের আঞ্চলিক এই সফর "[সৌদি আরবের] বাদশাহ হওয়ার পথে আরও একটি মাইলফলক," সেই সাথে ক্রমবর্ধমান শক্তিশালী আরব ব্লকে নিজেকে তিনি শীর্ষ নেতা হিসেবে উপস্থাপন করতে পারছেন।

XS
SM
MD
LG