অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

যুক্তরাষ্ট্র, ইসরাইল নিরাপত্তা চুক্তি স্বাক্ষর, ইরানের বিরুদ্ধে আলোচনা


প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন (বাঁয়ে) এবং ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী ইয়ার ল্যাপিড জেরুজালেমে তাদের বৈঠকের পর গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলছেন। ১৪ জুলাই, ২০২২।

বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ইসরাইলি নেতাদের সাথে বৈঠক করেছেন। আলোচ্যসূচিতে ছিল নিরাপত্তা, ইউক্রেনের যুদ্ধ এবং যুক্তরাষ্ট্র-ইসরাইল সম্পর্ক। বাইডেন দায়িত্ব নেয়ার পর এটি মধ্যপ্রাচ্যে তার প্রথম সফর ছিল।

ইসরাইলের আত্নরক্ষার ক্ষমতা জোরালো করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করে বাইডেন এবং ইসরাইলের তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী ইয়ার ল্যাপিড একটি যৌথ ঘোষণায় স্বাক্ষর করেছেন।

ইসরাইল ২০১৫ সালে ইরান এবং বিশ্বশক্তির একটি গোষ্ঠীর মধ্যে স্বাক্ষরিত আন্তর্জাতিক চুক্তির একটি বড় সমালোচক ছিল। ওই চুক্তির অধীনে নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নেয়ার বিনিময়ে ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচিকে সীমিত করার কথা বলা হয়েছিল। চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হওয়ার সময় বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন এবং ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রকে এই চুক্তি থেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন।

ভিয়েনায় পরোক্ষ আলোচনাসহ যুক্তরাষ্ট্র এবং ইরান উভয়কেই চুক্তিতে ফিরিয়ে আনার জন্য সম্প্রতি প্রচেষ্টা চালানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বাইডেন ইসরাইলের প্রেসিডেন্ট আইজ্যাক হারজোগের সাথেও বৈঠক করেছেন, দুজনের সাথে সংযুক্ত আরব আমিরাত, তুরস্ক এবং জর্ডানসহ এই অঞ্চলের অন্যান্য দেশের সাথে ইসরাইলের উদীয়মান সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা করেছেন।

জেরুজালেমে বৃহস্পতিবার আলোচনার পর শুক্রবার ফিলিস্তিনি নেতা মাহমুদ আব্বাসের সাথে বাইডেনের বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র পূর্ব জেরুজালেমের হাসপাতালের জন্য প্রশাসনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার কথিত “উল্লেখযোগ্য অর্থায়ন প্যাকেজ” ঘোষণা করতে প্রস্তুত। অন্যান্য পরিকল্পিত ঘোষণাগুলোতে ফিলিস্তিনের অর্থনৈতিক উন্নয়নকে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে; যেমন গাজা এবং পশ্চিম তীরে ফোর-জি ওয়্যারল্যাস নেটওয়ার্কের বিকাশ ঘটানো।

ভয়েস অফ আমেরিকার ক্রিস হান্স এ প্রতিবেদন তৈরিতে সহায়তা করেছেন।

XS
SM
MD
LG