অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আফগানিস্তানে ভূমিকম্পে কয়েক ডজন মানুষ আহত, শত শত ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত


পূর্ব আফগানিস্তানে জুনের শেষের দিকে ভূমিকম্পে শত শত মানুষ নিহত এবং কয়েক ডজন স্থাপনা ধ্বংস হয়ে যায়। ২৪ জুন, ২০২২।

তালিবান কর্তৃপক্ষ মঙ্গলবার জানিয়েছে, আফগানিস্তানে দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের একটি প্রত্যন্ত অঞ্চলে রাতে ভূমিকম্পে প্রায় ৪৪ জন আহত হয়েছে এবং ৬০০ ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়ে গেছে।

এই ভূমিকম্পে পাকতিকা প্রদেশের বেশ কয়েকটি জেলা কেঁপে ওঠে, যেখানে গত মাসেই ৫.৯ মাত্রার ভূমিকম্পে ১ হাজারের বেশি লোক নিহত হয়, প্রায় ৩,০০০ জন আহত হয় এবং কমপক্ষে ৪,৫০০ ঘরবাড়ি ধ্বংস বা আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের জিওলজিক্যাল সার্ভে জানিয়েছে, সর্বশেষ ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৫.১ এবং এরপর আফটার শকের কথাও বাসিন্দারা জানিয়েছেন।

প্রাদেশিক সরকারের একজন মুখপাত্র মোহাম্মদ আমিন হুজাইফা ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেন, পাকটিকায় আহত কমপক্ষে ৩১ জনের মধ্যে নারী ও শিশুও রয়েছে। প্রতিবেশী খোস্ত প্রদেশের তালেবান কর্মকর্তারাও সোমবার কম্পনে কমপক্ষে ১৩ জন আহত হওয়ার খবর দিয়েছে।

হুজাইফা গত মাসে ভূমিকম্পের পর থেকে পাকটিকায় মোট ৩০টি আফটারশকের কথাও জানান ।

যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তান এরই মধ্যে বিশ্বের সবচেয়ে বড় মানবিক জরুরি অবস্থার মধ্যে পড়ে গেছে। জাতিসংঘ বলছে, তীব্র খরা ও অর্থনৈতিক সংকটের কারণে দেশটির আনুমানিক ৪ কোটি জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি মানুষের সহায়তা প্রয়োজন এবং সেখানে অপুষ্টিও বাড়ছে।

জাতিসংঘ এ বছর ৪.৪ বিলিয়ন ডলারের জন্য আবেদন করেছে, কিন্তু তাতে ৭০% ঘাটতি আছে বলে জানা যায়।

সাম্প্রতিক এই প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঘটনাগুলি অর্থ-সঙ্কটে জর্জরিত বহির্বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন তালিবান সরকারের সীমাবদ্ধতাগুলিই প্রকাশ করছে।

কট্টরপন্থী এই ইসলামী দলটি প্রায় এক বছর আগে তৎকালীন আন্তর্জাতিকভাবে সমর্থিত আফগান সরকারের কাছ থেকে ক্ষমতা দখল করার পর দাতা দেশগুলি আর্থিক সহায়তা স্থগিত করে দেয়। সন্ত্রাসবাদ ও মানবাধিকার উদ্বেগের কারণে আফগান ব্যাংকিং সেক্টরের উপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।

সহায়তা সংস্থাগুলোর মতে, এই পদক্ষেপগুলিই সেখানে অর্থনৈতিক উত্থান এবং মানবিক অবস্থার অবনতি ঘটিয়েছে।

বিশ্ব সম্প্রদায় এখনও তালিবান সরকারকে স্বীকৃতি প্রদান না করলেও দেশটিতে আন্তর্জাতিক সহায়তা অব্যাহত আছে।

XS
SM
MD
LG