অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পূর্বাঞ্চলের ডনেটস্ক ছেড়ে চলে যাওয়ার আহ্বান জানালেন জেলেন্সকি


৩০ জুলাই ২০২২ তারিখে ইউক্রেনের খারকিভ শহরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর সেখানকার এক কারিগরী শিক্ষাকেন্দ্রের ভবনে লাগা আগুন নেভাচ্ছেন এক দমকলকর্মী।

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের ডনেটস্ক প্রদেশ ছেড়ে নিরাপদ স্থানে সরে যাওয়ার জন্য শনিবার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেন্সকি আহ্বান জানিয়েছেন। ঐ এলাকাতেই সবচেয়ে ভয়াবহ লড়াই সংঘটিত হয়েছে। রাশিয়া ঐ পুরো এলাকার নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে।

বৃহত্তর ডনব্যাস অঞ্চলের যুদ্ধক্ষেত্রগুলোতে শিশু ও বয়োঃবৃদ্ধসহ এখনও লক্ষ লক্ষ মানুষ রয়েছেন। ডনব্যাসের মধ্যে ডনেটস্ক ও লুহানস্ক প্রদেশ দুইটি অবস্থিত। এই এলাকাতেই এই সপ্তাহে ইতোপূর্বে হওয়া এক ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ইউক্রেনের যুদ্ধবন্দিরা নিহত হন।

জাতির উদ্দেশে তার প্রাত্যহিক সান্ধ্যকালীন বক্তব্যে শনিবার জেলেন্সকি এই ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, “যত বেশি মানুষ এখন ডনেটস্ক অঞ্চল পরিত্যাগ করে চলে যাবে, তত কম মানুষকে রুশ সেনাবাহিনী মারার সময় পাবে।” তিনি আরও বলেন যে, যেসব বাসিন্দা এলাকা ছেড়ে চলে যাবে তাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। রয়টার্স এসব তথ্য জানায়।

মানুষকে এলাকা ছেড়ে চলে যেতে উদ্বুদ্ধ করতে জেলেন্সকি চলে যাওয়ার ব্যবস্থায় সহায়তারও অঙ্গীকার করেছেন।

প্রেসিডেন্ট জেলেন্সকি বলেন, “অনেকেই চলে যেতে অস্বীকৃতি জানাচ্ছেন তবু সেটি করতে হবে। আপনার যদি সুযোগ থাকে, দয়া করে ডনব্যাসের যুদ্ধক্ষেত্রে যারা এখনও রয়ে গিয়েছেন তাদের সাথে কথা বলুন। দয়া করে তাদের এ বিষয়ে রাজি করান যে সেখান থেকে চলে যাওয়া প্রয়োজন।”

এর আগে শনিবার ইউক্রেন দাবি করে যে, পূর্বাঞ্চলে রাশিয়া পরিচালিত এক কারাগারে যে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ডজনকয়েক ইউক্রেনীয় যুদ্ধবন্দি নিহত হয়েছেন, সেই হামলার জন্য রাশিয়াকে জবাবদিহি করতে হবে।

ইউক্রেন সরকার শনিবার জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক রেড ক্রসের প্রতি আহ্বান জানায়, যাতে তারা অবিলম্বে শুক্রবারের ঐ হামলার তদন্ত করে।

ঐ ক্ষেপণাস্ত্র হামলার বিষয়ে আন্তর্জাতিক ক্ষোভ বাড়তে থাকার মধ্যে, জাতিসংঘ ঐ কারাগারে হামলার ঘটনা তদন্তে সহায়তার অঙ্গীকার করেছে।

XS
SM
MD
LG