অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে চীন: ওয়াং ই


রবিবার (৭ আগস্ট) গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই সৌজন্য সাক্ষাৎ।

বাংলাদেশের উন্নয়নে চীন সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই।রবিবার (৭ আগস্ট) গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে এ কথা বলেন তিনি। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

ওয়াং ই-কে উদ্ধৃত করে প্রেস সচিব ইহসানুল করিম বলেন, “কৌশলগত উন্নয়ন অংশীদার হিসেবে বাংলাদেশের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে চীন।” চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই বলেন, “বেইজিং, আন্তর্জাতিক ফোরামেও ঢাকার সব ইস্যুতে সমর্থন করবে।”

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ অভূতপূর্ব উন্নয়ন করেছে উল্লেখ করেন চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, “ডিজিটাল অর্থনীতির উন্নয়নে চীন বাংলাদেশকে সহায়তা দেবে।”

বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী বাংলাদেশের জন্য অতিরিক্ত বোঝা উল্লেখ করে বৈঠকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে চীনের সহায়তা চেয়েছেন।

জবাবে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই বলেন, “বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় আলোচনার মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান হবে বলে তার দেশ আশা করে। এই ইস্যুতে ত্রিপক্ষীয় হস্তক্ষেপের প্রয়োজন হলে চীন তার ভূমিকা পালন করবে।”

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে তাইওয়ান ইস্যুতে তাদের অবস্থান ব্যাখ্যা করেন ওয়াং ই। এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, “বাংলাদেশ ‘এক চীন নীতিতে’ বিশ্বাস করে।” তিনি চীনের মন্ত্রীকে বলেন, “বাংলাদেশ চীনের সঙ্গে বন্ধুত্বকে মূল্যায়ন করে।”

করোনার সময় যেসব বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের চীন ছাড়তে হয়েছে এবং পড়াশোনা শেষ করতে এখনো ক্যাম্পাসে যেতে পারেনি, তাদের দ্রুত ফিরিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে চীনকে অনুরোধ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা; জানান প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।

ঢাকা-বেইজিংয়ের মধ্যে ৪ চুক্তি-সমঝোতা সই

বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে সহযোগিতা বাড়াতে রবিবার (৭ আগস্ট) বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে চারটি চুক্তি ও সমঝোতা সই হয়েছে।

বাংরাদেশের রাজধানী ঢাকার একটি হোটেলে চীনের স্টেট কাউন্সিলর ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই এবং বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেনের মধ্যে এক ঘণ্টাব্যাপী দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পর এসব চুক্তি সই হয়।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পর সাংবাদিকদের বলেন, “চুক্তির বিস্তারিত পরে গণমাধ্যমকে জানানো হবে। চুক্তি ও সমঝোতাগুলোর মধ্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, সাংস্কৃতিক বিনিময় (নবায়ন) এবং সামুদ্রিক বিজ্ঞান বিষয়ক চুক্তি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।”

শাহরিয়ার আলম বলেন, “দুই দেশের মধ্যে বিরাজমান সম্পর্ককে ‘নতুন স্তরে’ উন্নীত করার লক্ষ্যে বৈঠকে উভয় পক্ষই দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক এবং বৈশ্বিক সমস্যা নিয়ে আলোচনা করে। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ভবিষ্যতে যৌথ সহযোগিতার ওপর জোর দেন এবং ‘এক-চীন’ নীতিতে বাংলাদেশের অবস্থানের প্রশংসা করেন।”

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পরিস্থিতির অবনতি বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে শাহরিয়ার বলেন, “আমাদের অবশ্যই এটা বন্ধ করতে হবে।” তিনি বলেন, “চীন জানিয়েছে তারা এ সংকট সমাধানে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং সংকটের সমাধানের জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করবে।”

এর আগে কৃষিমন্ত্রী মুহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বরাত দিয়ে সাংবাদিকদের বলেছেন, “মিয়ানমার একটি কঠিন দেশ, আমরা সঙ্কট সমাধানে আন্তরিকভাবে কাজ করছি এবং ভবিষ্যতেও আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখব।”

শনিবার (৬ আগস্ট) বিকাল ৫টা ১৮ মিনিটের দিকে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছালে কৃষিমন্ত্রী মুহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে স্বাগত জানান।

XS
SM
MD
LG