অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি: সিদ্ধান্ত স্থগিত চেয়ে রিট


বাংলাদেশে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি: সিদ্ধান্ত স্থগিত চেয়ে রিট।

বাংলাদেশে জ্বালানি তেল ডিজেল, পেট্রোল ও অকটেনের মূল্যবৃদ্ধির প্রজ্ঞাপনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে। রিটে তেলের দাম বৃদ্ধি করে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের জারি করা গেজেটের কার্যকারিতা স্থগিত করার আবেদন করা হয়। জ্বালানি সচিব, জ্বালানি মন্ত্রাণলয়ের উপসচিব ও বিইআরসির (বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের) চেয়ারম্যানকে রিটে বিবাদী করা হয়েছে।

সোমবার (৮ আগস্ট) সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইউনুছ আলী আকন্দ এ রিট দায়ের করেন। হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে বুধবার (১০ আগস্ট) আবেদনের ওপর শুনানি হতে পারে।

আইনজীবী ইউনুল আলী আকন্দ জানান, “আইন অনুযায়ী জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করবে বিইআরসি। কিন্তু সেটা না করে একটা গেজেট জারির মাধ্যমে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে। দাম বৃদ্ধির গেজেটে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে এই সিদ্ধান্ত জারি করা হলো। কিন্তু সংবিধানে রাষ্ট্রপতিকে জ্বলানি তেলের দাম বৃদ্ধির এখতিয়ার দেয়া হয়নি। আইনের লঙ্ঘন করে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করায় হাইকোর্টে রিট করেছি।”

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার (৫ আগস্ট) রাতে দেশে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর প্রজ্ঞাপন জারি করে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রাত ১২টার পর থেকে ডিপোর ৪০ কিলোমিটারের মধ্যে ভোক্তা পর্যায়ে খুচরা মূল্য (১ লিটার) ডিজেল ও কেরোসিন ১১৪ টাকা, অকটেন ১৩৫ টাকা এবং পেট্রোল১৩০ টাকা হবে।

এর আগে, কেরোসিন ও ডিজেল প্রতি লিটার ৮০ টাকা, অকটেন ৮৯ টাকা এবং পেট্রোল ৮৬ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

পরে গত ৬ আগস্ট জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়। শনিবার ৬ আগস্ট এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্যের ঊর্ধ্বগতির সঙ্গে সমন্বয়, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) লোকসান কমানোসহ পাচার হওয়ার শঙ্কা থেকে জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে সরকার। এরপর ৭ আগস্ট যানবাহনের ভাড়া বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত হয়।

XS
SM
MD
LG