অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশের সুন্দরবনে বেড়েছে হরিণ শিকার


বাংলাদেশের সুন্দরবনে বেড়েছে হরিণ শিকার

বাংলাদেশের সুন্দরবনের পশ্চিম বন বিভাগের আওতাধীন, খুলনা রেঞ্জে চোরাশিকারিদের অপতৎপরতা বেড়েছে। বন বিভাগের টহল টিমের সঙ্গে বিশেষ টহল টিম ‘স্মার্ট প্যাট্রল' দায়িত্ব পালন করছে। তারপরও হরিণ শিকার কমছে না।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত ১৮ আগস্ট রাত সাড়ে ৯টায় দিকে পাচারকালে কয়রা উপজেলা সদর ইউনিয়নের ৪নং কয়রা গ্রামের বাসিন্দা ৩৮ বছর বয়সী রুহুল আমিন সানাকে হরিণের মাংশসহ আটক করা হয়। এছাড়া গত ৫ জুন সুন্দরবনে অভিযান চালিয়ে জবাই করা দুটি হরিণ, একটি নৌকা ও হরিণ ধরার ফাঁদ উদ্ধার করেন কয়রার হড্ডা বন টহল ফাঁড়ির কর্মীরা।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, বনবিভাগের কিছু অসাধু কর্মকর্তা চোরা শিকারিদের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত। তাদের যোগসাজশে এই শিকারি চক্র হরিণের মাংশ নিয়ে কয়রা এলাকা দিয়ে লোকালয়ে প্রবেশ করে।

পশ্চিম বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. হাসানুর রহমান বলেন, “আমাদের টহল টিম নিয়মিত পাহারা দেয়। তাদেরকে ফাঁকি দিয়ে এই চক্র হরিণ শিকার চালিয়ে যাচ্ছে। বন বিভাগের সদস্য কম থাকায় তারা এই সুযোগ পাচ্ছে।”

এ বিষয়ে কয়রা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এবি এম এস দোহা বলেন, “কিছু অসাধু কারবারি হরিণ শিকার করে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য ধ্বংস করছে। সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য রক্ষা করতে প্রতিনিয়ত কয়রা থানা পুলিশ বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে।”

XS
SM
MD
LG