অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশে চা শ্রমিকদের ধর্মঘট প্রত্যাহার, আগের মজুরিতেই ফিরছেন কাজে


চা শ্রমিকদের ধর্মঘট
চা শ্রমিকদের ধর্মঘট

ধর্মঘট প্রত্যাহার করে পূর্বের ১২০ টাকা মজুরিতেই কাজে ফিরছেন বাংলাদেশের চা শ্রমিকরা। সোমবার (২২ আগস্ট) থেকেই তারা কাজে যোগ দেয়ার কথা। রবিবার (২১ আগস্ট) রাতে মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসকের সাথে শ্রমিক নেতাদের বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত হয়।

বৈঠকে ধর্মঘট প্রত্যাহার করে কাজে ফেরার সিদ্ধান্ত হয়েছে জানিয়ে, চা শ্রমিক ইউনিয়নের অর্থ-সম্পাদক পরেশ কালিন্দি বলেন, “আপাতত আমরা পূর্বের মজুরিতেই কাজে যোগ দেব। তবে দ্রুততম সময়ে প্রধানমন্ত্রী আমাদের সাথে ভিডিও কনফারেন্সে আলাপ করে নতুন মজুরি নির্ধারণ করবেন। আর ধর্মঘট চলাকালীন ১০ দিনের মজুরিসহ সকল সুবিধাদি মালিকপক্ষ প্রদান করবে।”

শ্রমিক নেতাদের এমন সিদ্ধান্তে সাধারণ শ্রমিকদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

রবিবার রাতে নিজ কার্যালয়ে চা-শ্রমিক নেতাদের নিয়ে বৈঠকে বসেন মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান। এ সময় চা- শ্রমিকদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৈঠকে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকারিয়া, বিভাগীয় শ্রম দপ্তর উপ-পরিচালক মো. নাহিদুল ইসলাম, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার শীর্ষ কর্মকর্তা এবং বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে জেলা প্রশাসকের প্যাডে একটি যৌথ বিবৃতি দেয়া হয়। এতে উল্লেখ করা হয়, “প্রধানমন্ত্রীর প্রতি বিশ্বাস ও আস্থা রেখে তার সম্মানে বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়ন তাদের ধর্মঘট প্রত্যাহার করে ২২ আগস্ট থেকে কাজে যোগদান করবেন। আপাতত চলমান মজুরি, অর্থাৎ ১২০ টাকা হারেই শ্রমিকরা কাজে যোগদান করবেন। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করে পরবর্তীতে মজুরির বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর সদয় বিবেচনার পর চূড়ান্তভাবে নির্ধারিত হবে।”

বৈঠকের পর জানানো হয়; আসন্ন শারদীয় দূর্গাপূজার আগে, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে সংযুক্ত হওয়ার জন্য চা-শ্রমিক নেতৃবৃন্দ আবেদন করবেন; যা জেলা প্রশাসক কর্তৃক প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে উত্থাপিত হবে। চা-শ্রমিকদের অন্যান্য দাবি-সমূহ লিখিত আকারে জেলা প্রশাসকের কাছে দাখিল করবেন। জেলা প্রশাসক প্রধানমন্ত্রীর বিবেচনার জন্য তার কার্যালয়ে পাঠাবেন। এছাড়া বাগানমালিকরা বাগানের প্রচলিত প্রথা/দর মোতাবেক ধর্মঘটকালীন মজুরি শ্রমিকদের পরিশোধ করবেন।

ধর্মঘট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত সম্পর্কে চা শ্রমিক ইউনিয়ন সিলেট ভ্যালির সভাপতি রাজু গোয়ালা বলেন, “আমরা অনেক রাতে এই সিদ্ধান্তের কথা শুনেছি। এখন বিভিন্ন বাগান নেতাদের সাথে কথা বলবো। তবে আমরা ইউনিয়নের নেতাদের সিদ্ধান্তে সবসময়ই একমত। তাছাড়া প্রধানমন্ত্রী আমাদের অভিভাবক। তার আশ্বাসেই ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয়েছে।”

ইউনিয়ন নেতাদের এমন সিদ্ধান্তে সাধারণ শ্রমিকরা ক্ষুদ্ধ বলে জানিয়েছেন, চা শ্রমিক অধিকার আন্দোলনের সভাপতি রিদেশ মোদি। তিনি বলেন, “আগের মজুরিতেই কাজে ফিরতে হলে আমরা কেন এতদিন না খেয়ে ধর্মঘট করলাম।” সাধারণ শ্রমিকরা সোমবার (২২ আগস্ট) বসে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করবে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, দৈনিক মজুরি ১২০ টাকা থেকে ৩০০ টাকায় উন্নীত করার দাবিতে গত ১৩ আগস্ট থেকে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট শুরু করেন চা শ্রমিকরা। ধর্মঘটের আট দিনের মাথায় শনিবার (২০ আগস্ট) দুপুরে মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলের বিভাগীয় শ্রম দপ্তরের কার্যালয়ে শ্রম অধিপ্তর ও সরকারের প্রতিনিধির সাথে বৈঠকে বসেন চা শ্রমিক নেতারা।

বৈঠক শেষে শ্রমিক নেতারা ধর্মঘট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত জানান। নেতাদের এই সিদ্ধান্ত জানানোর পরই ক্ষোভ প্রকাশ করেন সাধারণ চা শ্রমিকরা। এমন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে সিলেট, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জে বিক্ষোভ করেন শ্রমিকরা। তারা ২৫ টাকা মজুরি বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ারও ঘোষণা দেন।

এরপর শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা নিজেদের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। এর একদিন পরই আগের মজুরি মেনে নিয়ে ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দিলেন শ্রমিক নেতারা।

XS
SM
MD
LG