অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু চুক্তি পুনর্বহাল আলোচনা বিলম্বিত করছে, অভিযোগ ইরানের


ইরানের রাজধানী তেহরানে একটি সংবাদপত্র বিক্রয়কেন্দ্রে দাঁড়ানো এক ব্যক্তি এতেমাদ পত্রিকা প্রথম পাতা দেখছেন, যার শিরোনামে ফারসি ভাষায় লেখা রয়েছে ‘জেসিপিওএ’র সমাপ্তির রাত’, ১৬ আগস্ট ২০২২।

ইরান সোমবার অভিযোগ করেছে যে যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু চুক্তি পুনর্বহাল বিষয়ক আলোচনাকে বিলম্বিত করছে। এই চুক্তি, ইরানের পরমাণু কর্মসূচিকে সীমিত করার বিনিময়ে, ইরানের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিল করবে ।

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রকের মুখপাত্র নাসের কানানির ভাষ্য মতে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের খসড়া করা প্রস্তাবিত নথি সম্পর্কে ইরানের মন্তব্যে সাড়া দিতে যুক্তরাষ্ট্র “গড়িমসি” করছে।

যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন গত সপ্তাহ থেকে ইরানের দেওয়া জবাব পর্যালোচনা করছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রকের মুখপাত্র নেড প্রাইস বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন যে, পর্যালোচনা “চলছে”।

আনুষ্ঠানিকভাবে জয়েন্ট কম্প্রিহেনসিভ প্ল্যান অফ অ্যাকশন (জেসিপিওএ) নামে পরিচিত ঐ চুক্তিটি থেকে ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয়। সে সময় যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন, চুক্তিটি অতিমাত্রায় ইরানের পক্ষে যায়।

চুক্তি প্রত্যাহার ও নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপের জবাবে ইরান চুক্তিতে থাকা নিজেদের প্রতিশ্রুতিগুলো থেকে পিছিয়ে আসে। ঐ প্রতিশ্রতিগুলো ছিলো চুক্তির আওতায় ইরানের জন্য প্রয়োজনীয়। প্রতিশ্রুতিগুলোর মধ্যে ছিল, বিশুদ্ধ ইউরেনিয়াম মজুদের সীমা বৃদ্ধি এবং পারমাণবিক স্থাপনাগুলোতে আরও উন্নত সেন্ট্রিফিউজ স্থাপন করা।

হোয়াইট হাউজের এক বিবৃতিতে বলা হয় যে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন রবিবার ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল ম্যাঁক্রো, ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও জার্মানির চ্যান্সেলর ওলাফ শোলজ এর সাথে টেলিফোনে আলাপ করেন। ঐ সময় নেতারা “ইরানের পারমাণবিক চুক্তি বিষয়ে চলমান আলোচনা, মধ্যপ্রাচ্যে অঞ্চলের সহযোগীদের জন্য সহায়তা জোরদার করা, এবং ইরানের আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতা সৃষ্টিকারী কর্মকাণ্ডগুলো প্রতিরোধ ও সীমাবদ্ধ করতে যৌথ প্রচেষ্টার” বিষয়ে আলাপ করেন।

XS
SM
MD
LG