অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সাহেল অঞ্চলে সংকট ভুলে যাওয়া ঝুঁকির নামান্তর: জাতিসংঘ কর্মকর্তা


সাহেল অঞ্চলের মানচিত্র

জাতিসংঘের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, বিশ্বজুড়ে একই সময় অনেকগুলো জরুরি অবস্থার কারণে আফ্রিকার অস্থিতিশীল সাহেল অঞ্চলের বিস্মৃত হয়ে যাওয়া সংকটের ঝুঁকি সৃষ্টি করছে। পশ্চিম ও মধ্য আফ্রিকার আঞ্চলিক অফিসের মানবিক বিষয়ক সমন্বয় দপ্তরের প্রধান চার্লস বার্নিমোলিন এই সপ্তাহে ভিওএ-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তার উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

তিনি বলেন, সাহেল অঞ্চলের ছয়টি দেশ- বুরকিনা ফাসো, ক্যামেরুন, চাদ, মালি, নাইজার ও নাইজেরিয়ার লক্ষ লক্ষ মানুষের বেঁচে থাকার জন্য আন্তর্জাতিক সাহায্য সহায়তার প্রয়োজন। সেনেগালের ডাকারে অবস্থিত ওই কর্মকর্তা ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেন, জেনেভায় দাতা দেশগুলোর সঙ্গে বৈঠকে তিনি এই বার্তাটি তুলে ধরেছেন।

তিনি বলেন, ১ কোটি ৮৬ লক্ষ মানুষ তীব্র ক্ষুধার মুখোমুখি এবং অনেকেই প্রায় অনাহারের থাকার মত অবস্থায় রয়েছে। তিনি বলেন, ৫ বছরের নীচে বয়সের ৭৭ লক্ষ শিশু অপুষ্টিতে ভুগছে যাদের মধ্যে প্রায় ২০ লক্ষ শিশু গুরুতর ভাবে অপুষ্টিতে ভুগছে। ঐ শিশুরা দ্রুত চিকিৎসা না পেলে মৃত্যুর ঝুঁকিতে রয়েছে।

তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারী, ইউক্রেনের যুদ্ধ এবং বিশ্বজুড়ে অন্যান্য সংকটের কারণে এই অঞ্চলের ক্রমবর্ধমান চাহিদাগুলি মূলত উপেক্ষিত। তিনি বলেন, বিশ্বের দৃষ্টি এদিকে না থাকায় সাহেল সংকট আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন ,"সংকটের কারণে, সম্পূর্ণ একটি প্রজন্ম যারা মূলত মৌলিক পরিষেবাগুলি থেকে বঞ্চিত, যাদের ন্যূনতম খাদ্য বা ন্যূনতম স্বাস্থ্য ও স্কুলে যাওয়ারও উপায় নেই। এমনকি কিছু ক্ষেত্রে ঐ মানুষগুলোকে অপহরণ করা হয় হত্যা করা হয়”।

বার্নিমোলিন বলেন, সংঘাত ও সহিংসতা, প্রচন্ড দারিদ্র্য, দুর্বল শাসন এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব লক্ষ লক্ষ মানুষকে বেঁচে থাকার শেষ প্রান্তে নিয়ে যাচ্ছে।

ওসিএইচএ বলেছে, সশস্ত্র সংঘাত এবং সহিংস চরমপন্থা ঐ অঞ্চলের লক্ষ লক্ষ মানুষকে তাদের জমি ও বাড়িঘর ত্যাগ করতে বাধ্য করেছে। এতে বলা হয়, বুরকিনা ফাসোতে জিহাদি ও অন্যান্য সশস্ত্র গোষ্ঠীর লড়াইয়ে প্রায় ২০ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

বার্নিমোলিন বলেন, চলমান সহিংসতা প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে শহুরে এলাকার দিকে নজিরবিহীন ভাবে ছড়িয়ে পড়ছে। উল্লেখ্য, যারাই তাদের জমি ত্যাগ করছেন হয় তাদের জমিতে কোন ফসল হয় না বা নিজেদের এবং তাদের পরিবারের জন্য আহার যোগাতে পারেন না।

বার্নিমোলিন বলেন, ৩ কোটিরও বেশি সাহেলবাসীর সহায়তা ও সুরক্ষা প্রয়োজন।জাতিসংঘের মানবিক কার্যক্রমের জন্য ৪১০ কোটি ডলারের আবেদন করা হলেও মাত্র এক তৃতীয়াংশ অর্থায়ন সম্ভব হয়েছে।

XS
SM
MD
LG