অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

নর্ডিক দেশগুলো বাংলাদেশের সঙ্গে শক্তিশালী অংশীদারিত্বে আগ্রহী: ওয়েবিনারে রাষ্ট্রদূতরা


‘বাংলাদেশ-নর্ডিক সম্পর্ক: ভবিষ্যতের জন্য পূর্বাভাস’ শীর্ষক ওয়েবিনার

বাংলাদেশে নিযুক্ত নর্ডিক রাষ্ট্রদূতরা বলেছেন যে তাদের দেশগুলো আগামী ৫০ বছর এবং তার পরও বন্ধুত্ব অব্যাহত রাখতে বাংলাদেশের সঙ্গে ‘শক্তিশালী ও টেকসই’ অংশীদারিত্ব করতে চায়। এই অংশীদারিত্বের মাধ্যমে বৃহত্তর সহযোগিতার লক্ষ্যে, সুযোগ অন্বেষণের প্রধান খাতগুলো হবে জলবায়ু, সবুজ রূপান্তর, প্রযুক্তি হস্তান্তর, সুস্থ মহাসাগর, লিঙ্গ-সমতা, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ।

কসমস ফাউন্ডেশন আয়োজিত, ‘বাংলাদেশ-নর্ডিক সম্পর্ক: ভবিষ্যতের জন্য পূর্বাভাস’ শীর্ষক ওয়েবিনারেবৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) তারা এ কথা বলেন।

ওয়েবিনারে যৌথভাবে প্রস্তুত মূল বক্তব্য প্রদানকালে, সুইডেনের রাষ্ট্রদূত আলেকজান্দ্রা বার্গ ফন লিন্ডে, নরওয়ের রাষ্ট্রদূত এসপেন রিক্টর সভেনডসেন ও বাংলাদেশে নিযুক্ত ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত উইনি ইস্ট্রুপ পিটারসেন বাংলাদেশে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের গুরুত্ব, বহুপক্ষীয়তা, বৈশ্বিক সংহতি, আন্তর্জাতিক আইন ও মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের স্বদেশে মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবর্তনের গুরুত্ব তুলে ধরেন।

ওয়েবিনারে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা ড. ইফতেখার আহমেদ চৌধুরীর। উদ্বোধনী বক্তব্য দেন কসমস ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান এনায়েতুল্লাহ খান।

ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত পিটারসেন বলেন, “এই ৫০ বছরে আমরা একসাথে একটি উল্লেখযোগ্য যাত্রা করেছি। আমাদের অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠিত হয়েছে চ্যালেঞ্জ ও সাফল্যের মধ্যদিয়ে।আমরা দৃঢ়ভাবে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়িয়েছি। এটা বলা ন্যায্য হবে যে, নর্ডিকরা বাংলাদেশের বিশ্বস্ত অংশীদার ও বন্ধু হয়ে থাকতে চায়।”

সুইডেনের রাষ্ট্রদূত লিন্ডে বলেন, তার দেশ টেকসই ও সবুজ রূপান্তর-এর মধ্যে বাংলাদেশের অংশীদার হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করতে চায় এবং একই সঙ্গে বাংলাদেশের প্রতিযোগিতা জোরদার করতে চায়।

তিনি বলেন, “বাণিজ্য নীতির মধ্যে, সবুজ রূপান্তর প্রচারে সুইডেনের প্রচেষ্টা, উন্নয়ন সহযোগিতার মধ্যে তাদের বিভিন্ন কাজের ধারার সাথে মিলে যায়।”

নরওয়ের রাষ্ট্রদূত সভেনডসেন বলেন, “ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য সমুদ্রগুলোর সুস্থতা ও উৎপাদনশীলতা নিশ্চিত করা নরওয়ে ও বাংলাদেশ, উভয়-এর এজেন্ডা হিসেবে রয়েছে। আগামী বছরগুলোতে, মহাসাগরগুলো বিশ্বব্যাপী খাদ্য নিরাপত্তা, দারিদ্র্য হ্রাস, আন্তর্জাতিক পরিবহন, জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশ মোকাবেলার প্রচেষ্টার জন্য আরও গুরুত্বপূর্ণ হবে।”

“নরওয়ে সমুদ্রের প্লাস্টিক বর্জ্য ও মাইক্রোপ্লাস্টিক প্রতিরোধে একটি বৈশ্বিক চুক্তি প্রতিষ্ঠার জন্য নর্ডিক উদ্যোগে বাংলাদেশের সাথে কাজ করার আশা করে;” জানান নরওয়ের রাষ্ট্রদূত সভেনডসেন।

ড. ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী বলেন, “সম্প্রতি নর্ডিক সপ্তাহ যে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার সাথে পালিত হয়েছে, তা সুইডেন, নরওয়ে ও ডেনমার্ক এবং বাংলাদেশের মধ্যকার সম্পর্কের উষ্ণতার প্রতিফলন ঘটায়। আজ যে সহযোগিতার আকাঙ্ক্ষা তাদের চোখে দেখা যাচ্ছে, তা বহুগুণ সহযোগিতার মধ্যে পূর্ণতা পেয়েছে।”

রোহিঙ্গা সংকট

আলোচনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ জানতে চান, নর্ডিক দেশগুলো মিয়ানমার, বাংলাদেশ ও নর্ডিক দেশগুলোর মধ্যে স্থিতিশীলতা সৃষ্টির জন্য কোনো ত্রিপক্ষীয় উদ্যোগ নিতে পারে কি-না। যেহেতু নর্ডিক দেশ গুলোর শান্তির এজেন্ডা খুব মজবুত।

নরওয়ের রাষ্ট্রদূত সভেনডসেন জানান, সমস্যাটি অবশ্যই তাদের সবার জন্য একটি বড় উদ্বেগের বিষয়। নর্ডিক উদ্যোগের সম্ভাবনার বিষয়ে তিনি বলেন, “এই মুহূর্তে মিয়ানমারে তাদের ভালো নেটওয়ার্ক থাকলেও, স্থল পরিস্থিতি বিবেচনা করে এমন কোনো ভিত্তি থাকার কোনো সম্ভাবনা নেই।”

তিনি বলেন, “নরওয়ে বহু দশক ধরে সারা বিশ্বে শান্তি প্রক্রিয়ায় কাজ করছে এবং তারা সব পক্ষের অনুরোধে সেখানে ছিল। সেই ভিত্তি না থাকলে আমাদের কিছুই করার নেই।”

ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত বলেন, “নর্ডিক দেশগুলো রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মৌলিক চাহিদা ও অধিকার নিশ্চিত করার প্রচেষ্টায় বাংলাদেশকে জোরালো ভাবে সমর্থন করে।”

তিনি বলেন, “শরণার্থীদের মানবিক সহায়তা প্রদানের পাশাপাশি আমরা শুরু থেকেই মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের মর্যাদাপূর্ণ, নিরাপদ ও স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করার প্রচেষ্টায়, বাংলাদেশের প্রতি আমাদের কূটনৈতিক সমর্থন প্রসারিত করেছি।”

বাণিজ্য সম্পর্ক

নর্ডিক-বাংলাদেশ বাণিজ্য সম্পর্ক বছরের পর বছর ধরে ক্রমাগত বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে ১০০টিরও বেশি নর্ডিক কোম্পানি বাংলাদেশে ব্যবসা করছে।

সুইডেনের রাষ্ট্রদূত বলেন, “আমি মনে করি এ সব সংস্থা আমাদের সাথে একমত হবে, যখন আমরা বলব যে নর্ডিক ও বাংলাদেশের মধ্যে একটি বর্ধিত বাণিজ্য ও ব্যবসায়িক সম্পর্ক এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে।’

রাষ্ট্রদূত লিন্ডে বলেন, “স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বাংলাদেশের উতরে যাওয়ার আলোকে নর্ডিক দেশ ও বাংলাদেশ তাদের ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা সম্প্রসারণের জন্য ভালো অবস্থানে রয়েছে।”

XS
SM
MD
LG