অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

উত্তর কোরিয়ার সাবমেরিন-বিরোধী মহড়া চালাচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও জাপান


দক্ষিণ কোরিয়ার পূর্ব উপকূল সংলগ্ন সাগরে, যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ নৌমহড়া চলাকালীন, যুক্তরাষ্ট্রের বিমানবাহী রণতরী ইউএসএস রোনাল্ড রেগান (উপরে ডানে), যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার নৌবাহিনীর অন্যান্য জাহাজের সাথে মহড়ায় অংশ নিচ্ছে, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২।

গত পাঁচ বছরের মধ্যে প্রথমবারের মত শুক্রবার দক্ষিণ কোরিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানের যুদ্ধজাহাজগুলো তাদের ত্রিপাক্ষিক সাবমেরিনবিরোধী মহড়া শুরু করেছে। এর আগে, এই সপ্তাহে উত্তর কোরিয়া নতুন করে তাদের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা শুরু করেছে। ধারণা করা হচ্ছে, দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনীর যৌথ মহড়ার প্রতিক্রিয়া হিসেবে পরীক্ষাগুলো চালানো হয়।

উত্তর কোরিয়া সম্প্রতি পাঁচটি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করেছে। এগুলো এক মাসের মধ্যে চালানো এমন প্রথম পরীক্ষা।

যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট কামালা হ্যারিসের বৃহস্পতিবার দক্ষিণ কোরিয়ায় আগমনের আগে ও পরে পরীক্ষাগুলো চালানো হয়। হ্যারিস যুক্তরাষ্ট্রের এশীয় মিত্রদেরকে তাদের নিরাপত্তার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের “ইস্পাতকঠিন” অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন।

দক্ষিণ কোরিয়ার নৌবাহিনীর এক বিবৃতি অনুযায়ী, কোরীয় উপদ্বীপের পূর্ব উপকূলে অনুষ্ঠিত এই একদিনের ত্রিদেশীয় প্রশিক্ষণটির উদ্দেশ্য হল, সাববমেরিন থেকে ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণে, উত্তর কোরিয়ার সক্ষমতা বাড়ানোর চেষ্টাকে মোকাবেলা করা।

উত্তর কোরিয়া আরও বড় আকারের সাবমেরিন নির্মাণ করছে। এর মধ্যে একটি পরমাণু শক্তিচালিত সাবমেরিনও রয়েছে। এছাড়া, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তারা এমন উচ্চ-প্রযুক্তির ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করছে, যেগুলোকে ঐ সাবমেরিন থেকে উৎক্ষেপণ করা যায়। এটি উত্তর কোরিয়ার প্রতিদ্বন্দ্বী দেশগুলোর জন্য একটি উৎকন্ঠার বিষয়। কারণ, সাগরতলের নিচে থেকে উৎক্ষেপণ করা ক্ষেপণাস্ত্রগুলো আগেভাগে সনাক্ত করা বেশ কঠিন।

দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তারা গত সপ্তাহান্তে বলেন যে, তারা এমন লক্ষণ সনাক্ত করতে পেরেছেন যে, উত্তর কোরিয়া একটি সাবমেরিন থেকে পরীক্ষামূলকভাবে ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

শুক্রবারের মহড়াতে, ইউএসএস রোনাল্ড রেগান নামের পরমাণু শক্তিচালিত বিমানবাহী রণতরীটি ছাড়াও, যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানের ডেস্ট্রয়ার জাহাজ অংশ নেবে বলে, নৌবাহিনীর বিবৃতিটিতে বলা হয়। সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, মহড়া চলাকালে, তিন দেশের জাহাজগুলো যুক্তরাষ্ট্রের পরমাণু শক্তিচালিত একটি সাবমেরিনকে খুঁজে বের করে সেটিকে অনুসরণ করার চেষ্টা করবে। ঐ সাবমেরিনটি মহড়ার সময় উত্তর কোরিয়ার সাবমেরিনের ভূমিকা পালন করবে। এ সময়ে জাহাজগুলো সংশ্লিষ্ট তথ্য আদান-প্রদান করবে।


XS
SM
MD
LG