অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিরোধীদের হয়রানি নিয়ে এইচআরডব্লিউ’র অভিযোগ ভিত্তিহীন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল


স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল

বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানিয়েছেন যে, বিরোধী রাজনীতিকদের বিরুদ্ধে অভিযান নিয়ে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের (এইচআরডব্লিউ) প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে সরকার। আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, “বিরোধী রাজনীতিবিদদের হয়রানির অভিযোগ ভিত্তিহীন। গণগ্রেপ্তার এবং পুলিশি অভিযানের অভিযোগ সত্য নয়, এমন কিছু হচ্ছে না।”

সোমবার (১০ অক্টোবর) প্রকাশিত হিউম্যান রাইটস ওয়াচের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তারা অভিযোগ পেয়েছে যে কর্তৃপক্ষ এবং ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সমর্থকরা ২০২৩ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগে, বিরোধী রাজনীতিবিদদের ওপর হামলা করছে এবং তাদের হয়রানি করছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এই দাবিকে স্পষ্টভাবে প্রত্যাখ্যান করেছেন। তিনি বলেছেন, “সরকারের পাশাপাশি দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য এটা নিছক অপপ্রচার ছাড়া কিছুই নয়।”

এইচআরডব্লিউ’র বিবৃতির প্রতিক্রিয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “পুলিশের কিছু নিয়মিত দায়িত্ব পালন করতে হয় এবং কখনও কখনও তারা নাগরিকদের বাড়িতে গিয়ে খোঁজখবর নেয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পুলিশের বিশেষ শাখা এই কাজ করে। কিছু লোক নিখোঁজ হওয়ার খবর পেলে, বিশেষ শাখার সদস্যরা সত্য জানতে তাদের পরিবারের কাছে যান। এটি তাদের রুটিন ওয়ার্ক, অন্য কিছু নয়।”

আসাদুজ্জামান খাঁন বলেন, “গণগ্রেপ্তার ও পুলিশি অভিযানের অভিযোগ বিএনপি ও জামায়াতের অপপ্রচার।”

নিউইয়র্ক ডেটলাইন দিয়ে প্রকাশিত বিবৃতিতে এইচআরডব্লিউ বলেছে, “বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষের উচিত আইনের শাসনকে সম্মান করা এবং বিরোধী রাজনৈতিক সমর্থকদের, সংগঠনের স্বাধীনতা ও শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অধিকার রক্ষা করা।”

এতে বলা হয়, “আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে গণগ্রেপ্তার এবং বিরোধী দলের সদস্যদের বাড়িতে পুলিশি অভিযান চালানো, সহিংসতা ও ভীতি প্রদর্শনের বিষয়ে গুরুতর উদ্বেগ সৃষ্টি করে।”

বিবৃতিতে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের পরিচালক ড. মীনাক্ষী গাঙ্গুলী বলেছেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বারবার বলেছেন, বাংলাদেশ একটি পরিপক্ক গণতন্ত্র, যা নির্বাচন পরিচালনা করতে এবং ক্ষমতার শান্তিপূর্ণ হস্তান্তর করতে সক্ষম। কিন্তু এর আগের নির্বাচনগুলোতে সহিংসতা, বিরোধীদের ওপর আক্রমণ এবং ভোটারদের ভয় দেখানোর ঘটনা দেখা গেছে।”

তিনি বলেন “রাজনৈতিক হামলা ও গ্রেপ্তারের সাম্প্রতিক ঘটনা আসন্ন সংসদ নির্বাচনের জন্য একটি অশুভ সুর তৈরি করেছে।”

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, “২২ আগস্ট থেকে বিএনপি জ্বালানি ও পণ্যের দাম বৃদ্ধি নিয়ে ধারাবাহিক বিক্ষোভ শুরু করে। তখন থেকে, পুলিশ ও বিরোধী দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) এবং আওয়ামী লীগের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে কমপক্ষে চারজন মারা গেছে এবং শতাধিক আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।”

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “এ ধরনের সংঘর্ষের পর, কর্তৃপক্ষ বিএনপি সমর্থকদের বিরুদ্ধে গণমামলা দিয়েছে। এটি বিএনপির একটি বিবৃতিকে প্রতিধ্বনিত করেছে যে, তার সমর্থকদের বিরুদ্ধে কমপক্ষে ২০ হাজার মামলা দায়ের করা হয়েছে, অনেক ক্ষেত্রেই অজ্ঞাতনামা আসামি রয়েছে।”

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “বড় সংখ্যক ‘অজ্ঞাতনামাদের’ বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগ বাংলাদেশে একটি সাধারণ অবমাননাকর অভ্যাস; যা পুলিশকে কার্যত যে কাউকে গ্রেপ্তারের জন্য ভয় দেখাতে, হুমকি দিতে এবং আটক ব্যক্তিদের বারবার গ্রেপ্তার করতে অনুমতি দেয়ে। এমন মামলার ফলে, আটক ব্যক্তিরা অভিযুক্ত না হয়েও অনুরোধ করে জামিন পেতে ব্যর্থ হন।”

মীনাক্ষী গাঙ্গুলী বলেন, “যুক্তরাষ্ট্রের মানবাধিকার নিষেধাজ্ঞা এবং আসন্ন পার্লামেন্ট নির্বাচনের কারণে বাংলাদেশের আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো আরও নিরীক্ষার মধ্যে রয়েছে। বাংলাদেশের কূটনীতিকদের উচিত প্রকাশ্যে এবং ব্যক্তিগতভাবে উদ্বেগ প্রকাশ করা যে, এই ধরনের দমন-পীড়ন একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য হুমকিস্বরূপ।”

XS
SM
MD
LG