অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র সামরিক বাহিনীর মধ্যে সহযোগিতা বাড়ছে: রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ এ মুহিত


বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র সামরিক বাহিনীর মধ্যে সহযোগিতা বাড়ছে: রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ এ মুহিত

জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ এ মুহিত বলেছেন, “বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর মধ্যে বহুমাত্রিক সহযোগিতা বাড়ছে।”

শুক্রবার(২১ অক্টোবর) বাংলাদেশের স্থায়ী মিশনে ২৬ সদস্যের ইউএস আর্মি ওয়ার কলেজ প্রতিনিধি দলকে স্বাগত জানান তিনি। এ সময় বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষায় বাংলাদেশের সম্পৃক্ততা নিয়ে আলোচনা করেন। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে শীর্ষ সেনা ও পুলিশ সদস্য প্রেরণকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ অবদানের ওপর আলোকপাত করেন রাষ্ট্রদূত মুহিত।

তিনি জাতিসংঘে ‘শান্তির সংস্কৃতি’ এবং ‘নারী, শান্তি ও নিরাপত্তা’ শীর্ষক দু’টি প্রস্তাব গ্রহনে বাংলাদেশের নেতৃত্বের কথা উল্লেখ করেন। বাংলাদেশের প্রবর্তন করা আরও কয়েকটি প্রস্তাবের বিষয়ে কথা বলেন তিনি।এরমধ্যে, দৃষ্টি প্রতিবন্ধিতা, ডুবে যাওয়া রোধ, প্রাকৃতিক উদ্ভিদ তন্তু এবং দোহা প্রোগ্রাম অফ অ্যাকশন (ডিপিওএ) উল্লেখযোগ্য।

রাষ্ট্রদূত মুহিত, রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘে বাংলাদেশের বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়ে আলোচনা করেন।

এদিকে, বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা(ডিএ) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. সাদেকুজ্জামান, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের নিযুক্তি এবং বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের নিবেদিত ভূমিকা সম্পর্কে প্রতিনিধিদলকে অবহিত করেন।মো. সাদেকুজ্জামান জানান, এ পর্যন্ত ৫৬টি জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে এক লাখ ৮১ হাজার ৬৬১ জন বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী অংশগ্রহণ করেছে। বর্তমানে ৯টি ভিন্ন মিশনে সাত হাজার ১৪৪ জন বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী মোতায়েন রয়েছে।

তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি দলকে অবহিত করেন যে দায়িত্বপালনকালে এ পর্যন্ত ১৬৫ জন বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী প্রাণ হারিয়েছেন এবং ২৫৮ জন আহত হয়েছেন। প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা(ডিএ) আরও উল্লেখ করেন যে বর্তমানে শান্তিরক্ষা মিশনে ৫৪২ জন নারী শান্তিরক্ষী মোতায়েন রয়েছে।

ইউএস আর্মি ওয়ার কলেজের প্রতিনিধি দল মূল্যবান তথ্য বিনিময় এবং উষ্ণ আতিথেয়তার জন্য বাংলাদেশ মিশনকে ধন্যবাদ জানায়। আর, স্থায়ী প্রতিনিধি ইউএস আর্মি ওয়ার কলেজ প্রতিনিধিদলকে তাদের সফরের জন্য বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনকে বেছে নেয়ায় ধন্যবাদ জানান।

জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন জানায়, ইউএস আর্মি ওয়ার কলেজ প্রতি বছর শান্তি অভিযানের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে জানতে বাংলাদেশ মিশন পরিদর্শন করে। এই অংশীদারিত্ব জাতিসংঘ শান্তি কার্যক্রমে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য অবদান এবং বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের সুনাম ও পেশাদারিত্বের স্বীকৃতি হিসেবে এসেছে। ওয়ার কলেজে প্রশিক্ষণরত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাও এই প্রতিনিধি দলে ছিলেন।

XS
SM
MD
LG