অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

উত্তর কোরিয়া কয়েক দফা ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের পর জাপানে জরুরি নির্দেশনা জারি


২০২২ সালের ২ নভেম্বর সিউলের একটি রেলওয়ে স্টেশনে উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলার ফুটেজ একটি টেলিভিশন স্ক্রিনে দেখছেন এক ব্যক্তি।

নজিরবিহীন কয়েক দফা ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের একদিন পর উত্তর কোরিয়া বৃহস্পতিবার আরও তিনটি হামলা করে যার মধ্যে একটি দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে। ফলে জাপানে তিনটি এলাকায় জরুরী আশ্রয় নেবার নির্দেশ দেয়া হয়।

জাপানের মিয়াগি, ইয়ামাগাতা এবং নিগাতা এলাকার বাসিন্দাদের অবিলম্বে আশ্রয় নেওয়ার জন্য সতর্ক করা হয়। দেশের কিছু অংশে টেলিভিশনে জরুরি সতর্কতা প্রচার করা হয়।

জাপানের জরুরি সম্প্রচার ব্যবস্থায় প্রাথমিকভাবে বলা হয়, উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্রটি জাপানি ভূখণ্ডের ওপর দিয়ে উড়ে গেছে, কিন্তু পরে প্রতিরক্ষা কর্মকর্তারা সেই দাবি প্রত্যাহার করে নেন। দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়াসুকাজু হামাদা বলেন, কোরীয় উপদ্বীপ ও জাপানের মধ্যবর্তী সমুদ্রের ওপর দিয়ে উড্ডয়নের সময় কর্মকর্তারা ক্ষেপণাস্ত্রটির গতিপথ হারিয়ে ফেলেন।

যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের বিবৃতি অনুযায়ী আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের "তীব্র নিন্দা" জানায় । তারা তাদের মাতৃভূমি, দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য "সমস্ত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা" নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র পররাষ্ট্র মন্ত্রকও এই উৎক্ষেপণকে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের রেজোলিউশনের "স্পষ্ট লঙ্ঘন" হিসাবে নিন্দা করেছে। এই ব্যবস্থায়, উত্তর কোরিয়ার কোনও ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কার্যকলাপ নিষিদ্ধ করা হয়েছিল।

বৃহস্পতিবার পরের দিকে উত্তর কোরিয়া সাগরে আরও দুটি স্বল্প পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ছোঁড়ে বলে জানিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানের প্রতিরক্ষা কর্মকর্তারা।

চলমান যুক্তরাষ্ট্র -দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক মহড়ার প্রতি ক্ষোভ দেখাতে উত্তর কোরিয়া তাদের ক্ষেপণাস্ত্র হামলা আর গোলাবর্ষণ চালিয়ে যাচ্ছে।

XS
SM
MD
LG