অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

অস্ট্রেলিয়া জাতীয় সন্ত্রাসবাদের ঝুঁকির মাত্রা কমালো, নজর এখন বিদেশী হস্তক্ষেপ ও গুপ্তচরবৃত্তির দিকে


অস্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থার মহাপরিচালক মাইক বার্জেস ক্যানবেরায় একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন (২৮ নভেম্বর, ২০২২)

অস্ট্রেলিয়ায় জঙ্গি হামলার হুমকির শ্রেণীবিন্যাস ৫টি স্তরে করা হয়। জঙ্গিবাদ হুমকির সর্বোচ্চ মাত্রা ‘নিশ্চিত’ থেকে শুরু করে ‘প্রত্যাশিত নয়’ পর্যন্ত এর বিস্তার।

২০১৪ থেকে সতর্কতা পরিস্থিতিকে মধ্যম মাত্রার এবং “সম্ভাব্য” হিসেবে দেখানো হয়েছে। মধ্যপ্রাচ্যে জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটের উদ্ভবের পর থেকে এই মাত্রা নির্ধারণ করা হয়।

সম্প্রতি এই মাত্রা কমিয়ে “হামলা হতেও পারে” অর্থাৎ, কর্তৃপক্ষ বিশ্বাস করে অস্ট্রেলিয়া এখনও জঙ্গি হামলার সম্ভাব্য লক্ষ্যস্থল হিসেবে বিবেচিত হলেও এ ধরনের হামলা পরিচালনা করতে ইচ্ছুক জঙ্গি সদস্যের সংখ্যা এখন আগের চেয়ে কম।

সোমবার জঙ্গি হামলার ঝুঁকির মাত্রা কমানোর ঘোষণাটি দেন অস্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থার (এএসআইও) মহাপরিচালক মাইক বার্জেস।

তিনি ক্যানবেরায় সংবাদদাতাদের জানান, দেশকে সতর্ক থাকতে হবে।

এএসআইও’র প্রধান সতর্ক করেন, এখনও কিছু ব্যক্তি আছেন যারা “অন্যান্য অস্ট্রেলীয় নাগরিকদের হত্যার স্বপ্ন দেখেন এবং এখনও (অনলাইন) চ্যাটরুমে তাদের ঘৃণাযুক্ত আদর্শ ছড়িয়ে দিচ্ছেন।”

২০১৪ সাল থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত এএসআইও ১১টি জঙ্গি হামলার সংবাদ প্রকাশ করেছে। এছাড়াও, ২১টি উল্লেখযোগ্য জঙ্গি হামলার পরিকল্পনা “চিহ্নিত ও বাধাগ্রস্ত” করা হয়েছে।

বার্জেস স্বীকার করেন, অস্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তা ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এখন বিদেশী শক্তির অযাচিত হস্তক্ষেপ ও গুপ্তচরবৃত্তি প্রতিরোধের দিকে বেশি করে নজর দিচ্ছে ।

তিনি আরও জানান, সম্প্রতি সিরিয়ার কুর্দিদের পরিচালিত বন্দীশালায় মৃত ও কারারুদ্ধ ইসলামিক স্টেট যোদ্ধাদের অস্ট্রেলীয় স্ত্রী, বিধবা ও শিশুদের দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়টি ঝুঁকির মাত্রা কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে অনুঘটক হিসেবে কাজ করেছে।

XS
SM
MD
LG