অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ফেসবুকের মূল কোম্পানি মেটা তাদের প্ল্যাটফর্ম থেকে খবর সরিয়ে ফেলার হুমকি দিয়েছে


ফেসবুকের নতুন রি-ব্র্যান্ড লোগো মেটার ডিস্প্লের সামনে এক নারী ফেসবুকের লোগোসহ একটি স্মার্টফোন ধরে রেখেছেন। ২৮ অক্টোবর, ২০২১। ফাইল ছবি।

মঙ্গলবার ফেসবুকের মূল প্ল্যাটফর্ম মেটা ইনকর্পোরেটেড বলেছে, কংগ্রেস যদি প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোকে তাদের বিষয়বস্তুর জন্য নিউজ আউটলেটগুলোকে অর্থ প্রদানে আইন পাস করে, তবে তারা তাদের প্ল্যাটফর্ম থেকে সংবাদ অপসারণ “বিবেচনা করতে বাধ্য” হবে।

জার্নালিজম কম্পিটিশন অ্যান্ড প্রিজারভেশন অ্যাক্ট, যদি পাস হয়, তাহলে সেটি কোন সংবাদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রদর্শিত হবে সেই আলোচনায় সংবাদ সংস্থাগুলোকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর সাথে সম্মিলিতভাবে আলোচনা করার অনুমোদন দেবে।

মেটা বলেছে, তারা “ নিউজ আউটলেটগুলোকে যে সুবিধা দেয় তা অন্যায্যভাবে উপেক্ষা করে সরকার নির্দেশিত আলাপ-আলোচনার অধীন হওয়ার” চেয়ে বরং তাদের প্ল্যাটফর্ম থেকে সংবাদ সরিয়ে নেবে। মেটার মুখপাত্র অয়ন্ডি স্টোনের একটি টুইট বিবৃতিতে মেটা বলেছে তাদের মাধ্যমে নিউজ আউটলেটগুলোর “ট্রাফিক এবং সাবস্ক্রিপশন বৃদ্ধি পায়। ”

ক্যালিফোর্নিয়ার মেনলো পার্কে মেটার সদর দপ্তর অবস্থিত। অতীতেও তারা একই রকম অবস্থান নিয়েছে। গত বছর অস্ট্রেলিয়ায় আইন পাস করার পরে তারা সে দেশে তাদের প্ল্যাটফর্ম থেকে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য সংবাদ বন্ধ রাখে। ওই আইনের অধীনে প্রযুক্তি সংস্থাগুলোকে সংবাদকে তাদের সাইটে বিষয়বস্তু হিসেবে ব্যবহার করার জন্য প্রকাশকদেরকে অর্থ প্রদানে বাধ্য করা হয়েছিল। মেটা পরবর্তীতে অস্ট্রেলীয় প্রকাশকদের সাথে চুক্তি করে।

মিনেসোটা থেকে ডেমোক্র্যাট এবং ঐ বিলের স্পনসর সেনেটার অ্যামি ক্লোবুচার বলেন, আইনটি কেবল সংবাদ সংস্থাগুলোকে তাদের সংবাদের জন্য ভালো দাম পাবার উদ্দেশ্যে “বিশ্বের সবচেয়ে বড় কোম্পানিগুলোর সাথে” আলোচনা করার জন্য একত্রিত হতে সহায়তা করে।

তিনি বলেন, “বিজ্ঞাপন থেকে গুগল তিন মাসে ৬ হাজার ৬শ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে। অন্যদিকে সংবাদপত্র এবং ছোট ছোট রেডিও স্টেশনগুলোর অনেকেই বন্ধ হয়ে গেছে।” তিনি আরও বলেন “আমরা কেবল বিষয়বস্তুর জন্য ন্যায্য মূল্য পেতে চেষ্টা করছি।”

XS
SM
MD
LG