অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চার দেশ ব্যবহার করতে পারবে চিলাহাটি-মোংলা রেলপথ: রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন


বাংলাদেশের নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার চিলাহাটি স্টেশন ও চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথ উন্নয়ন প্রকল্প পরিদর্শনকালে রেলমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন। ১৮ ডিসেম্বর, ২০২২।

বাংলাদেশের রেলমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, “চিলাহাটি থেকে মোংলা পর্যন্ত রেলপথে জুন মাসের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপিত হবে। ভারত,বাংলাদেশ, নেপাল ও ভুটান, এই চারটি দেশ এই রেলপথ ব্যবহার করতে পারবে।” রবিবার (১৮ ডিসেম্বর) দুপুরে নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার চিলাহাটি স্টেশন ও চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথ উন্নয়ন প্রকল্প পরিদর্শনে এসে রেলমন্ত্রী একথা বলেন।

নুরুল ইসলাম সুজন বলেন, “মোংলা পোর্ট থেকে ভারত,বাংলাদেশ, নেপাল ও ভুটান, এই চারটি দেশ চিলাহাটি রেলপথকে ব্যবহার করতে পারবে মালামাল এবং যাত্রী পরিবহনের জন্য। সে লক্ষ্য নিয়েই উন্নয়ন কাজ চলছে। আগামী জুন মাসের মধ্যে এই কাজ সমাপ্ত হবে বলে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।”

বাংলাদেশের রেলমন্ত্রী উল্লেখ করেন যে চিলাহাটি-হলদিবাড়ি অবিভক্ত ভারতের রেলপথ। ১৯৬৫ সালে পাকিস্তান-ভারত যুদ্ধের পর এ যোগাযোগ ব্যবস্থাটি বন্ধ হয়ে যায়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পর, দীর্ঘদিন এই রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ ছিল। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অবিভক্ত ভারতে বাংলাদেশ অঞ্চলের যে আটটি রেল সংযোগ ছিল, পর্যায়ক্রমে সবগুলোকে চালু করাসহ অনেকগুলো প্রকল্প হাতে নেন। সেসব প্রকল্প বাস্তবায়েনের কাজ চলছে বলে জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, “দর্শনা, বেনাপোল, রহনপুর, বিরল এবং চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথ আমাদের প্রধানমন্ত্রী মালামাল পরিবহনের জন্য এবং যাত্রী পরিবহনের জন্য মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেন আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন। সে লক্ষে চিলাহাটি রেলস্টেশনটির আমূল পরিবর্তনের জন্য আমরা পরিকল্পনা গ্রহন করেছি। প্রথম পর্যায়ে অনেকগুলো কাজ হয়েছে, তাতে করে রেল যোগাযোগটা হয়েছে, এখন কাজ চলছে রেলস্টেশনের আইকনিক ভবনসহ অন্যান্য উন্নয়নের।”

রেলমন্ত্রী চিলাহাটি রেলস্টেশনের আইকনিক ভবন, লুপলাইন স্থাপনে জমি অধিগ্রহণ এলাকা পরিদর্শন শেষে, জমির মালিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

XS
SM
MD
LG