অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চট্টগ্রামের আলোচিত জামালউদ্দিন হত্যা: ২০ বছর পর অভিযুক্ত ব্যক্তির আত্মসমর্পণ


অভিযুক্ত ফটিকছড়ির কাশেম চেয়ারম্যানের আত্মসমর্পণ

চট্টগ্রামে বহুল আলোচিত ব্যবসায়ী ও বিএনপি নেতা জামালউদ্দিন অপহরণ ও হত্যার মামলায় অভিযুক্ত ফটিকছড়ির কাশেম চেয়ারম্যান ঘটনার ২০ বছর পর আদালতে আত্মসমর্পণ করলে, তাকে জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। হত্যার পর ২০ বছর বিদেশে পালিয়ে ছিলেন কাশেম চেয়ারম্যান। সম্প্রতি দেশে ফিরে, মঙ্গলবার (৩ জানুয়ারী) চট্টগ্রাম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চান তিনি। বিচারক নারগিস আক্তার তার জামিনের আবেদন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

আদালতের বেঞ্চ সহকারী ফরিদ উদ্দিন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। ঐ সময় বহুল আলোচিত এ হত্যা মামলার অন্যতম অভিযুক্ত ফটিকছড়ির কাঞ্চননগরের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কাসেম দীর্ঘদিন বিদেশে পালিয়ে থাকার পর, গত ২২ নভেম্বর উচ্চ আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন। উচ্চ আদালত তার ৬ সপ্তাহের জামিন মঞ্জুর করে এবং সংশ্লিষ্ট আদালতে আত্মসমর্পণের আদেশ দেন। জামিনের মেয়াদ শেষ হলে, কাসেম মঙ্গলবার আদালতে আত্মসমর্পণ করে আবার জামিন আবেদন করেন। পঞ্চম অতিরিক্ত চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ আদালতেই জামাল উদ্দিন হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ চলছে। এই মামলায় মোট সাক্ষী ৮৪ জন। তাঁদের মধ্যে মাত্র তিনজনের সাক্ষ্য গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০০৩ সালের ২৪ জুলাই রাতে চট্টগ্রামের চকবাজারের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে চান্দগাঁওয়ের বাসায় ফেরার পথে অপহৃত হন শিল্পপতি ও দক্ষিণ জেলা বিএনপি নেতা জামাল উদ্দিন। তার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে অপহরণের দুই বছর পর অপহরণকারী চক্রের সদস্য আনোয়ারা সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম গ্রেফতার হন। একই সময়ে গ্রেপ্তার হন চট্টগ্রামের ইসলামী ছাত্র শিবিরের সদস্য মাহবুব ওরফে কালা মাহবুব।

তাদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ফটিকছড়ির কাঞ্চননগরের দুর্গম পাহাড়ি এলাকা থেকে ২০০৫ সালের ২৪ আগস্ট জামাল উদ্দিনের কঙ্কাল উদ্ধার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। সিঙ্গাপুরে ডিএনএ পরীক্ষার পর, কঙ্কালটি জামাল উদ্দিনের বলে নিশ্চিত হয় পরিবার। এরপর এই অপহরণ মামলা, হত্যা মামলায় রূপান্তর করে শুরু হয় তদন্ত।

মামলার অন্যতম অভিযুক্ত আনোয়ারা সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে জামাল উদ্দিনকে অপহরণ, মুক্তিপণ আদায় ও হত্যার পর মরদেহ গুমের ঘটনায় জড়িতদের সম্পর্কে তথ্য দেন।

XS
SM
MD
LG