অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

অর্থপাচার মামলায় বহিষ্কৃত আওয়ামী লীগ নেতা এনামুল ও রূপনের ৭ বছরের কারাদণ্ড


অর্থপাচার মামলায় বহিষ্কৃত আওয়ামী লীগ নেতা এনামুল ও রূপনের ৭ বছরের কারাদণ্ড।
অর্থপাচার মামলায় বহিষ্কৃত আওয়ামী লীগ নেতা এনামুল ও রূপনের ৭ বছরের কারাদণ্ড।

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার গেন্ডারিয়া থানা আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত দুই নেতা এনামুল হক এনু ও রুপন ভূঁইয়াকে অর্থপাচারের মামলায় সাত বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া ৫২ কোটি ৮৮ হাজার ৭৮৮ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অনাদায়ে আরো ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৮ এর বিচারক মো. বদরুল আলম ভূঁঞা এ রায় দেন।এই মামলায় অভিযুক্ত অন্য ছয় জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের খালাস দেয়া হয়। খালাস পাওয়া ব্যক্তিরা হলেন; হীদুল হক, মো. রশিদুল হক ভূঁইয়া, মো. মেরাজুল হক শিপলু, জয় গোপাল সরকার, পাভেল রহমান ও ভুলু চন্দ্র দেব।

রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেন, “এ দেশের মানুষ দুর্নীতিবাজদের ঘৃণা করেন। আর, যারা মানি লন্ডারিং অপরাধের সঙ্গে যুক্ত, তারা শুধু আমাদের সম্পদ চুরি করছে না; তারা আমাদের সন্তানদের ভবিষ্যত চুরি করছে। তাদের প্রত্যেককে বিচারের আওতায় এনে, রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে সহায়তা করা আমাদের প্রত্যেকের কর্তব্য।”

এর আগে, গত বছরের ২২ এপ্রিল মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের আরেক মামলায় এনামুল ও রুপনের সাত বছর করে কারাদণ্ড হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে, দুই ভাই এনামুল হক এনু ও রুপন ভূঁইয়ার পুরান ঢাকার বানিয়ানগরের বাসায়, ওয়ান্ডারার্স ক্লাবে এবং তাদের দুই সহযোগী আবুল কালাম ও হারুন অর রশিদের বাসায় অভিযান চালায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

এরপর, এই দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জন ও অর্থপাচারের অভিযোগে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন থানায় ১২টি মামলা হয়। ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারি এনু ও রুপনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

XS
SM
MD
LG