অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ল, সিনোভ্যাকের সিদ্ধান্ত বদল


চলমান করোনা মহামারির কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আরেক দফা ছুটি বাড়ানো হয়েছে। বলা হয়েছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার মত পরিবেশ এখনও তৈরি হয়নি। তাই ৩১শে অক্টোবর পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। ১৭ই মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বৃহস্পতিবার এরকম ইঙ্গিতই দিয়েছিলেন। বলেছিলেন, পরিবেশ তৈরির উপর সবকিছু নির্ভর করছে। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ব্যাপারে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। পহেলা এপ্রিল থেকে পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল। করোনার ভয়াবহতায় পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। আগামী সপ্তাহে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হতে পারে এমনটাই বলা হচ্ছে।

ওদিকে বাংলাদেশে চীনা ভ্যাকসিন সিনোভ্যাকের ট্রায়াল অনিশ্চিত হয়ে গেছে। কথা ছিল, বিনামূল্যে সিনোভ্যাক টিকার ট্রায়াল হবে। কিন্তু চীনা কোম্পানিটি এখন বলছে, বিনামূল্যে তা আর সম্ভব নয়। কারণ বাংলাদেশ সময়মত সিদ্ধান্ত না নেয়ায় বরাদ্দকৃত টাকা অন্যদেশে চলে গেছে। এখন ট্রায়াল হতে পারে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশকে টাকা দিতে হবে। এক চিঠিতে সিনোভ্যাক তাদের এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে। সিনোভ্যাকের এই ট্রায়াল না হওয়ায় বিনামূল্যে বাংলাদেশ এক লাখ ১০ হাজার ভ্যাকসিন পাওয়া থেকে বঞ্চিত হলো। ১৯শে জুলাই অনুমতি দেয়ার পর থেকে বার তিনেক সিদ্ধান্ত বদল করেছে বাংলাদেশ। চূড়ান্ত পর্যায়ে যখন এই ভ্যাকসিনটি বিমানে উঠবে তখনই অপেক্ষার কথা জানায় বাংলাদেশ। ধারণা করা হচ্ছে, এই সিদ্ধান্তহীনতার কারণে চীনা কোম্পানিটি পূর্বের সিদ্ধান্ত বাতিল করেছে। ঢাকায় কর্মকর্তারা এ সম্পর্কে কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছেন না। তবে অনেকেই বলছেন, নানামুখী চাপ ও ভূ-রাজনৈতিক কারণে বাংলাদেশ সিদ্ধান্তে অটল থাকতে পারেনি। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে জানানো হয়েছে। তার সিদ্ধান্তের পর পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। উল্লেখ্য যে, সিনোভ্যাকের এই ট্রায়ালের জন্য আইসিডিডিআরবি সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছিল। চার হাজার ২০০ জন চিকিৎসক-নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীকে বাছাই করা হয়েছিল।

গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২১ জনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে এই ভাইরাসে পাঁচ হাজার ২৭২ জন মারা গেলেন। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৫০৮ জন। সবমিলিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন তিন লাখ ৬৪ হাজার ৯৮৭ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন দুই লাখ ৭৭ হাজার ৭৮ জন।

please wait

No media source currently available

0:00 0:02:12 0:00
সরাসরি লিংক


XS
SM
MD
LG