অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

খালেদা জিয়া মুক্তি পেয়েছেন


বাংলাদেশে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পেয়েছেন। বুধবার বিকেল সোয়া ৪টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলের প্রিজন সেল থেকে তিনি মুক্তি পান। এগার মাস তিনি এই সেলেই ছিলেন। এক দুর্নীতি মামলায় ২০১৮ সালের ৮ই ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে কারাদন্ড দেয়া হয়। এরপর থেকে তিনি কারাগারেই ছিলেন।

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক নির্বাহী আদেশে ২টি শর্তে সাজা স্থগিত করে তাকে ৬ মাসের জন্য মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতার মধ্যে খালেদা জিয়ার মুক্তিতে এক ইতিবাচক রাজনীতির শুভ সূচনা বলে অনেকেই মন্তব্য করেন। যুক্তরাষ্ট্রের তরফেও এই সিদ্ধান্তের প্রশংসা করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিক এলিস ওয়েলস এক টুইট বার্তায় বলেন, করোনা ভাইরাসের বৈশ্বিক এই মহামারিতে এমন নেতৃত্ব প্রয়োজন, যা সমবেদনা ও জাতীয় ঐক্যকে অগ্রাধিকার দেয়। বিএনপি'র নির্বাসিত নেতা তারেক রহমানও এক ভিডিও বার্তায় বেগম জিয়ার মুক্তিকে স্বাগত জানান।

বেগম জিয়া প্রিজন সেল থেকে বের হয়ে মিডিয়ার সামনে কোন কথা বলেননি। এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সকালেই বলেছিলেন শর্ত ভঙ্গ করলে তাকে পুনরায় জেলে নিয়ে যাওয়া হবে। প্রিজন সেল থেকে বেগম জিয়াকে একটি হুইল চেয়ারে করে নিয়ে আসা হয়। এ সময় তার পরণে ছিল গোলাপি শাড়ি। মুখ ঢাকা ছিল মাস্ক দিয়ে। পরিবারের সদস্যরাও তার পাশে ছিলেন।

উল্লেখ্য যে, বেগম জিয়াকে স্বাগত জানাতে করোনা ভাইরাসের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও বিএনপির নেতাকর্মীরা হাসপাতালে ভিড় জমান। গুলশানে তার বাসভবনে যাওয়ার মটরর‌্যালিতে রাস্তা ব্লক হয়ে যাওয়ায় পুলিশকে দু’দফা লাঠিচার্জ করতে হয়।

খালেদা জিয়ার মুক্তির পর বিএনপি মহাসচিবের প্রতিক্রিয়া
please wait

No media source currently available

0:00 0:00:57 0:00

XS
SM
MD
LG