অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে না পারার জন্য বাংলাদেশ সরাসরি মিয়ানমারকে দায়ী করেছে


সম্প্রতি দ্বিতীয়বারের মত সকল প্রস্তুতি নেয়া সত্ত্বেও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে না পারার জন্য বাংলাদেশ সরাসরি মিয়ানমারকে দায়ী করেছে।

বাংলাদেশের তরফে বলা হয়েছে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন নিয়ে বিভিন্ন বিষয়ে মিইয়ানমার সরকারের অস্বচ্ছতার কারনে রোহিঙ্গাদের দেশে ফিরার উদ্যোগ আবারও ঝুলে গেছে। এ প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের বিষয়ে আরও জোরালো ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছে। এর আগে ২০১৮ সালের নভেম্বর মাসে আরেক দফা প্রত্যাবাসনের উদ্যোগ নেয়া হলেও ফিরে যাওয়ার জন্য রোহিঙ্গারা তাঁদের নাগরিকত্ব প্রদানসহ ৫ দফা দাবি পূরণের আগে মিয়ানমারে ফিরতে রাজি না হওয়ায় সে উদ্যোগ ভেস্তে যায় । এ বিষয়গুলো নিয়ে ভয়েস অফ অ্যামেরিকার সাথে কথা বলেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ। তবে তাঁর সাথে কথা বলার আগে আসুন আমরা জেনে নেই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন দ্বিতীয় দফা ভেস্তে যাওয়ার বিষয়ে বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ কি ভাবছেন।

বিশ্লেষকরা বলছেন রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে মিয়ানমারের ওপর কঠোর চাপ প্রয়োগের জন্য বাংলাদেশকে কূটনৈতিক তৎপরতা বাড়াতে হবে। এ প্রেক্ষাপটে অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদের কাছে প্রশ্ন ছিল রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বার বার আহ্বান জানাচ্ছে। এর কোন সুফল কি পাওয়া যাচ্ছে বলে আপনি মনে করেন?

বিশ্লেষকরা বলছেন রোহিঙ্গা প্রত্যবাসনে স্বচ্ছতা আনার জন্য মিয়ানমারকে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব প্রদানসহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো নিয়ে কফি আনান কমিশনের সুপারিশের ভিত্তিতে একটি সময়াবদ্ধ রোডম্যাপ জাতিসংঘে পেশ করতে হবে এবং তা বাস্তবায়নের অঙ্গিকার করতে হবে । তাঁদের বিশ্বাস এমনটা করা গেলে এমনিতেই রোহিঙ্গারা যে স্বদেশে ফিরে যাবেন সে বিষয়ে কোন সন্দেহ নাই।

please wait

No media source currently available

0:00 0:09:32 0:00

XS
SM
MD
LG