অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কুড়িগ্রামে সাংবাদিকের উপর নির্যাতনের ঘটনায় পদস্থ সরকারি কর্মকর্তার শাস্তি


আরিফুল ইসলাম রিগান এবং সুলতানা পারভিন

বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের কুড়িগ্রাম জেলায় একজন সাংবাদিককে সাজা দেওয়া এবং নির্যাতনের ঘটনায় অসদাচরণের প্রমাণ পাওয়ায় একজন পদস্থ সরকারি কর্মকর্তাকে শাস্তি দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সংবাদ মাধ্যমের খবরে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়েছে এই ঘটনায় কুড়িগ্রামের সাবেক জেলা প্রশাসক এবং বর্তমানে সরকারে উপ-সচিব পদ মর্যাদার বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতানা পারভিনের বেতন বৃদ্ধি দুই বছরের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। গত বছর ১৩ই মার্চ গভীর রাতে কুড়িগ্রামের তদানীন্তন জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভিনের নির্দেশে জেলা প্রশাসনের কতিপয় কর্মকর্তা দরজা ভেঙে বাংলা ট্রিবিউনের জেলা প্রতিনিধি আরিফুল ইসলাম রিগানের বাসায় ঢুকে তাকে মারধর এবং পরে জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ে নিয়ে বিবস্ত্র করে নির্যাতন করেন। এছাড়াও মাদক রাখার অভিযোগে তাকে এক বছরের কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করে একটি ভ্রাম্যমাণ আদালত। ।

এ ঘটনায় দেশব্যাপী তীব্র সমালোচনার মুখে সাংবাদিক রিগানকে মুক্তি দেওয়া হয়। পরে জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভিনকে প্রত্যাহার করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা করা হয়। এ ঘটনার সাথে জড়িত জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সিনিয়র সহকারী কমিশনার নাজিম উদ্দিন, সহকারী কমিশনার এসএম রাহাতুল ইসলাম এবং সেদিন রাতে রিগানের বাসায় অভিযান পরিচালনাকারী ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রিন্টু বিকাশ চাকমাকেও প্রত্যাহার করা হয়। একই সঙ্গে এই ঘটনায় বিভাগীয় অভিযোগ দায়ের করা হয় এবং এ বিষয়ে তদন্ত করতে কমিটি গঠন করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

এ ঘটনায় সুলতানা পারভিনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলার তদন্তে অসদাচরণের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করে বলা হয় এর শাস্তি হিসেবে তাঁর বেতন বৃদ্ধি দুই বছরের জন্য স্থগিত করা ছাড়াও তিনি ভবিষ্যতে এই মেয়াদের কোনও বকেয়া পাবেন না এবং এই মেয়াদ বেতন বৃদ্ধির জন্য গণনা করা হবে না। তবে এ ঘটনায় জড়িত অন্যান্যদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কিনা তা জানা যায় নাই।

সুলতানা পারভিনের বিরুদ্ধে নেয়া ব্যবস্থা সম্পর্কে তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় দৈনিক ইত্তেফাকের কূটনৈতিক বিভাগের সম্পাদক এবং জাতীয় প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক মাইনুল আলম ভয়েস অফ অ্যামেরিকাকে বলেন আমরা আশা করেছিলাম সাংবাদিক রিগানের ওপর যে জঘন্য নির্যাতন চালানো হয়েছিলো তার দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি হবে। তিনি হতাশা ব্যক্ত করে বলেন সুলতানা পারভিন তাঁর ক্ষমতার অপব্যবহার করে যে ঘৃণ্য অপরাধ করেছেন তার তুলনায় তাঁকে যে লঘুদণ্ড দেয়া হল তা গ্রহণ যোগ্য নয় এবং এটা মেনে নেয়া যায় না। মাইনুল আলম বলেন তাঁকে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দেয়া গেলে জনগণকে সেবা দেয়ার পরিবর্তে যে সকল সরকারি কর্মকর্তা তাঁর মত মানসিকতা নিয়ে কাজ করেন তাঁরা সতর্ক হয়ে যেতেন ।

XS
SM
MD
LG