অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ডিজিটালাইজড ক্যাবল অপারেটিং সিস্টেম চালুর নির্দেশ, অন্যথায় লাইসেন্স বাতিল হবে 


বিদেশি টেলিভিশন নেটওয়ার্ক

বিজ্ঞাপনমুক্ত বিদেশি টেলিভিশন নেটওয়ার্ক চালু নিয়ে বিতর্কের এখনো সুরাহা হয়নি। এরমধ্যে সরকারের তরফে ১ নভেম্বরের মধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রামে ডিজিটালাইজড ক্যাবল অপারেটিং সিস্টেম চালুর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, এ সময়ের মধ্যে সিদ্ধান্ত কার্যকর না হলে লাইসেন্স বাতিল হয়ে যাবে। তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ সোমবার টেলিভিশন মালিকদের সংগঠন অ্যাটকো'র সঙ্গে বৈঠকে সরকারের এই সিদ্ধান্তের কথা জানান।

ক্যাবল অপারেটর এসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আনোয়ার পারভেজ মনে করেন, "এত স্বল্প সময়ের মধ্যে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা সম্ভব নয়। কারণ, এই সিস্টেম চালু করতে হলে বক্স আমদানি করতে হবে। এজন্য কমপক্ষে দুইমাস সময় লাগবে। তাছাড়া লাখ লাখ বক্স আমদানিতে বিপুল পরিমাণ টাকার প্রয়োজন। এই টাকা অপারেটররা পাবে কোথা থেকে?" তিনি বলেন, "সহজ শর্তে যদি সরকার ঋণ দেয় তখন হয়তো দ্রুততম সময়ের মধ্যে সিদ্ধান্ত কার্যকর করা সম্ভব হবে।"

ক্লিন ফিড প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, "২৪টি বিদেশি টিভি-চ্যানেল নিয়ম মেনে ফিড পাঠাচ্ছে। অথচ অপারেটররা এগুলো সম্প্রচার করছে না। আকাশ ডিটিএইচ সেগুলো সম্প্রচার করছে। এগুলো সম্প্রচার করতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। কিন্তু যারা ক্লিন ফিড চালাচ্ছেন না, তারা আসলে শর্ত ভঙ্গ করছেন।"

মন্ত্রী বলেন, "যারা ডাউনলিংকের অনুমতি দিয়েছে তাদের ব্যবসার স্বার্থে ক্লিন ফিড চালানো উচিত।" ক্যাবল অপারেটরদের সতর্ক করে মন্ত্রী বলেন, "হাজার হাজার বিদেশি প্রতিষ্ঠান লাইসেন্স-এর জন্য আগ্রহ দেখাচ্ছে। দেশের অপারেটররা শর্ত ভঙ্গ করলে অন্যদের সুযোগ দেয়া হবে।"

উল্লেখ্য যে, ১ অক্টোবর থেকে বিজ্ঞাপনযুক্ত বিদেশি টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধ রয়েছে।

XS
SM
MD
LG