অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দিল্লি সফর ঘিরে নানামুখী আলোচনা


বাংলাদেশের নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেনের আসন্ন দিল্লি সফর ঘিরে নানামুখী আলোচনা চলছে। যদিও বলা হচ্ছে, এটা একটি নির্ভেজাল পরিচিতিমূলক সফর। কেউ কেউ এটাকে রাজনৈতিক সফরও বলছেন।

আগামী বুধবার তিন দিনের এক সফরে ড. মোমেন দিল্লি যাচ্ছেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ ছাড়াও পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে একান্ত বৈঠকের কথা রয়েছে। সাবেক প্রেসিডেন্ট প্রণব মুখার্জির সঙ্গেও সৌজন্য সাক্ষাত হবে এমনটাই বলা হচ্ছে। ভারতের লোকসভা নির্বাচন সামনে রেখে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দিল্লি সফরের অনেকখানি তাৎপর্য রয়েছে। ঢাকার কূটনৈতিক বিশ্লেষকরা অবশ্য সতর্ক আশাবাদ ব্যক্ত করছেন। তারা বলছেন, ঢাকায় নয়া সরকার। দিল্লিতে নতুন সরকার আসবে। মাঝখানে এই সফর কতখানি অবদান রাখবে তা অবশ্য দেখার বিষয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক আমেনা মহসিন মনে করেন, দুই নিকট প্রতিবেশীর মধ্যে যখনই আলোচনা হয় তখনই বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। ড. মোমেনের সফর কেবল হাই-হ্যালোর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে না এটা নিশ্চিত করে বলা যায়।

উল্লেখ্য যে, দ্বিপক্ষীয় আলোচনার সর্বোচ্চ ফোরাম জয়েন্ট কনসালটেটিভ কমিশনের পঞ্চম বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্কের নানা দিক নিয়ে আলোচনা হবে। ২০১৭ সনে ঢাকায় জেসিসির সর্বশেষ বৈঠক হয়েছিল।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরকালে তিস্তা নিয়ে আলোচনা হবে এমন কোন ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির আপত্তির কারণে বিষয়টি ঝুলে রয়েছে। সামনে নির্বাচন তাই ভারতের কোন দলই হয়তো কোন প্রতিশ্রুতি দেবে না। এ কারণে এই ইস্যুটি আলোচনায় জায়গা পাবে না এমনটাই বলছেন ওয়াকেবহাল কূটনীতিকরা।

please wait

No media source currently available

0:00 0:01:39 0:00


XS
SM
MD
LG