অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশে টিকার সংকট, বন্ধ হয়ে গেল গণকার্যক্রম


ঢাকা মেডিকেল কলেজ ভ্যাকসিনেশন সেন্টারে একজন নার্স কোভিড ভ্যাকসিন দেবার প্রস্তুতি নিচ্ছেন

আপাতত গণটিকা কার্যক্রম বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। টিকার স্বল্পতার কারণেই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক শেষে সরকারের এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন। বলেছেন, যে পরিমাণ টিকা হাতে থাকবে সে পরিমাণে নিবন্ধন করা হবে। যারা মোবাইলে বার্তা পাবেন তাদেরকেই কেবল টিকা দেয়া হবে।

গত ৭ই ফেব্রুয়ারি সারা দেশে গণটিকাদান কর্মসুচি শুরু হয়। তবে বেশিদিন চলেনি এই কার্যক্রম। মাঝপথেই হোঁচট খায়। কারণ ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট ২৫শে এপ্রিল অনেকটা আচমকা টিকা সরবরাহ বন্ধ করে দেয়। বাংলাদেশ সেরামের সঙ্গে তিন কোটি ডোজ টিকা কেনার চুক্তি করেছিল। ৭০ লাখ ডোজ দেয়ার পর রপ্তানি বন্ধ করে দেয় ভারত সরকার। তখন বলা হয়, নিজেদের প্রয়োজন মেটানোর পর রপ্তানি হতে পারে। কিন্তু ভারত নিজেই টিকার সংকটে রয়েছে। এরপর বাংলাদেশ অন্য সূত্র থেকে টিকা সংগ্রহের উদ্যোগ নেয়।

কেরানীগঞ্জের খোলামোড়ায় একটি গণ টিকা শিবির চলাকালীন একজন স্বাস্থ্যকর্মী একজন ব্যক্তিকে সিনোফার্ম ভ্যাকসিনের দিয়ে দিচ্ছেন
কেরানীগঞ্জের খোলামোড়ায় একটি গণ টিকা শিবির চলাকালীন একজন স্বাস্থ্যকর্মী একজন ব্যক্তিকে সিনোফার্ম ভ্যাকসিনের দিয়ে দিচ্ছেন

বাংলাদেশে টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন সাড়ে তিন কোটিরও বেশি মানুষ। যা কিনা মোট জনসংখ্যার ৩০ শতাংশেরও কম। প্রথম ডোজ পেয়েছেন এক কোটি ৬৬ লাখ মানুষ। দুই ডোজ পেয়েছেন মাত্র ৬৫ লাখ ৭৫ হাজার মানুষ।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, দেশে এখন সংক্রমণ কমে আসছে। মৃত্যুও কমেছে। টিকা পাওয়া গেলে আগামী ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যে আট কোটি মানুষকে টিকা দেয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে প্রথম ডোজ দেয়ার পর দ্বিতীয় ডোজের মেয়াদ কমিয়ে আনার ব্যাপারে আলোচনা হয়। তখন প্রধানমন্ত্রী কর্মকর্তাদেরকে এই মেয়াদ ১৫ থেকে ২০ দিন করা যায় কিনা তা খতিয়ে দেখতে বলেছেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এই তথ্য জানিয়েছেন। বর্তমানে প্রথম ডোজ দেয়ার দুই মাস পর দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হচ্ছে।

ওদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু আরও কমেছে। এ সময় মারা গেছেন ১১৭ জন। সংক্রমণও কমছে প্রতিদিন। গত একদিনে পাঁচ হাজার ৭১৭ জন সংক্রমিত হয়েছেন।

XS
SM
MD
LG