অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

প্রথম ব্রেক্সিট শীর্ষ সম্মেলন ২৯শে এপ্রিল


Demonstrators hold placards during a protest in favor of amendments to the Brexit Bill outside the Houses of Parliament, in London, Britain, March 13, 2017.

ব্রেক্সিটের সবকিছুতেই যেন নাটকীয়তায় ভরপুর। ইউরোপীয় ইউনিয়ন ত্যাগে আগামী বুধবার বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে চিঠি দেবেন। কিন্তু সেই চিঠি হাতে পাওয়ারও অপেক্ষা করলেন না ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড টাস্ক। মঙ্গলবারই তিনি জানিয়ে দিলেন যে, আগামী ২৯শে এপ্রিল বসবে প্রথম ব্রেক্সিট বৈঠক।
যুক্তরাজ্য ভিত্তিক স্কাই টিভি জানিয়েছে, ডনাল্ড টাস্ক বৃটেনের ইইউ ত্যাগকে ‘তালাকের’ সঙ্গে তুলনা করে বলেছেন, এখন তাদের কৌশল হবে এই বিচ্ছেদ সত্ত্বেও বৃটেনের সঙ্গে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সম্পর্ক অবশ্যই যেন কম বেদনাদায়ক থাকে।
খবরে বলা হয়েছে, তেরেসা মে’র এই চিঠি লেখার ফল দাঁড়াবে ‘সমঝোতা না হলেও বৃটেন ২০১৯ সালের ২৯শে মার্চ আপনা আপনি ইইউ থেকে বেরিয়ে যাবে।
উল্লেখ্য যে, ৫০ অনুচ্ছেদের অধীনে বৃটেন আনুষ্ঠানিকভাবে ইইউ ত্যাগ বিষয়ে না জানানো পর্যন্ত বৃটেনের সঙ্গে ইইউ’র ভবিষ্যৎ সম্পর্কের বিষয়ে আলোচনা শুরু করাই সম্ভব ছিল না।
আগামী বুধবার মিসেস মে ওই চিঠি হস্তান্তরের পরপরই ব্রেক্সিট বিষয়ক তার লক্ষ্য নির্ধারণ করে হাউস অব কমন্সে একটি বিবৃতি দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।
মিসেস মে সম্ভবত এটা পুর্নব্যক্ত করবেন যে, বৃটেন ইইউ’র সিঙ্গেল মার্কেট ত্যাগ করবে ঠিকই, কিন্তু ইইউ’র সঙ্গে তারা বাণিজ্য ও অন্যন্য বিষয়ে পারস্পরিক সুবিধাজনক চুক্তিতে পৌঁছাতে সচেষ্ট থাকবেন।
ওদিকে মিসেস মে’র একজন মুখপাত্র বৃটেনে একটি আগাম নির্বাচনের সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়ে বলেছেন, এটা ঘটছে না।
এ সম্পর্কে লন্ডন থরকর মতিউর রহমান চৌধুরীর রিপোর্ট।


XS
SM
MD
LG