অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

জাপানি মা চার রাত দুই শিশুর সঙ্গে থাকবেন, আদালতের নির্দেশ 


জাপানি নারী নাকানো এরিকো ও তার দুই শিশু কন্যা।

জাপানে জন্ম নেয়া দুই শিশুর অভিভাবকত্বের বিষয়টি উঠল উচ্চ আদালতে।আপাতত সমাধানও দিয়েছেন দুই বিচারপতির হাইকোর্ট বেঞ্চ। বলেছেন, দুই কন্যাকে নিয়ে চার রাত কাটাতে পারবেন জাপানি নারী নাকানো এরিকো।সন্তানকে নিয়ে বাসার বাইরে বেড়াতেও যেতে পারবেন তিনি। ২/১ ঘণ্টার জন্য বাবাও চাইলে সন্তানদের নিয়ে বাইরে ঘুরতে যেতে পারবেন।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ বুধবার এই আদেশ দেন। নাকানো এরিকো’র দায়ের করা একটি আবেদনের শুনানি নিয়ে এ আদেশ দেয়া হয়। তার আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির হাইকোর্টের আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। ঠিক কী কারণে এ আবেদন করা হয়েছে জানতে চাইলে তিনি ভয়েস অফ আমেরিকার এই সংবাদদাতাকে বলেন, মায়ের সঙ্গে সন্তানদের সময় কাটানোর বিষয়টি নিশ্চিত হয়নি, অনলাইন প্ল্যাটফরমে মানহানিকর তথ্য ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে।এ প্রেক্ষিতেই এ আবেদন করা হয়েছে।

আদেশে হাইকোর্ট বলেন, আজ ৮ই সেপ্টেম্বর দিবাগত রাতে বাবা শিশুদের সঙ্গে থাকতে পারবেন। ৯, ১১, ১৩ ও ১৫ই সেপ্টেম্বর রাতে শিশুরা মায়ের সঙ্গে থাকবে।ওই সময় বাবা থাকবেন না। বাকি সময়টা বাবামা দুইজনই শিশুদের সঙ্গে থাকতে পারবেন। মা চাইলে শিশুদের নিয়ে বেড়াতে যেতে পারবেন।শিশুদের বাবাও চাইলে ২/১ ঘণ্টার জন্য তাদের নিয়ে বাইরে যেতে পারবেন।বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফরমে এরিকোকে নিয়ে আপত্তিকর ও অবমাননাকর ভিডিও অপসারণে পদক্ষেপ নিতে বিটিআরসি’র চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ইমরান শরীফের ক্ষেত্রেও অবমাননাকর ভিডিও থাকলে তাও সরাতে বলা হয়েছে। এসব ভিডিও কারা অনলাইনে ছড়িয়েছে তাদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ফ্ল্যাটের অভ্যন্তরে থাকা সিসি টিভি ক্যামেরা অপসারণ করতে বলেছেন আদালত।

জাপানি নাগরিক নাকানো এরিকো পেশায় চিকিৎসক।ইমরান শরীফ বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকান নাগরিক। আদালতে মায়ের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন এডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির।আর বাবা ইমরান শরীফের পক্ষে এডভোকেট ফাওজিয়া করিম ফিরোজ।

এর আগে গত ৩১শে আগস্ট দুই শিশুকে নিয়ে সর্বশেষ আদেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট ওই আদেশে গুলশানের একটি ফ্ল্যাটে দুই শিশুকে নিয়ে তাদের বাবা-মাকে আপাতত ১৫ দিন থাকতে বলা হয়েছিল। ঢাকা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালককে বিষয়টি দেখভাল করতে বলেছিলেন হাইকোর্ট। ঢাকা মহানগর পুলিশ এবং পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) বলা হয়েছিল শিশু ও মা-বাবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে। এ আদেশের সংশোধন চেয়ে আবেদন করেন নাকানো এরিকো। দুই শিশুকে নিজের হেফাজতে চেয়ে গত মাসে হাইকোর্টে রিট করেন তিনি। গত ১৯শে আগস্ট এ নিয়ে আদেশ দেন হাইকোর্ট।আদালত ৩১শে আগস্ট দুই শিশুকে হাজির করতে তাদের বাবা ও ফুপুকে নির্দেশ দেন। বাবা ইমরান শরীফ যাতে দুই মেয়েকে নিয়ে দেশত্যাগ করতে না পারেন তা নিশ্চিত করার কথাও বলেন আদালত। এরইমধ্যে ২২শে আগস্ট ইমরান শরীফের বারিধারার বাসা থেকে দুই শিশুকে নিয়ে আসে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি। পরদিন ওই শিশুদের আদালতে হাজির করা হয়। দীর্ঘ শুনানি শেষে হাইকোর্ট ৩১শে আগস্ট পর্যন্ত শিশুদের ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখার নির্দেশ দেন। ওই সময়ে সকালে মা এবং বিকালে বাবা তাদের সঙ্গে সময় কাটাতে পারবেন বলে আদালতের আদেশে বলা হয়। গত ৩১শে আগস্ট দুই মেয়েসহ তাদের মা-বাবা এবং ফুপু হাইকোর্টে উপস্থিত হন।আদালত তাদের বক্তব্য শুনেন। শুনানি করেন দুই আইনজীবী। পরে ১৫ দিনের জন্য তাদের গুলশানের বাসায় রাখার আদেশ দেয়া হয়।

২০০৮ সালের ১১ই জুলাই নাকানো এরিকো ও ইমরান শরীফ বিয়ে করেন।দু’জনের ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। দাম্পত্য কলহবিবাদের কারণে গত ১৮ই জানুয়ারি বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন করেন এরিকো। এই দম্পতির তিন মেয়ে। তাদের বয়স যথাক্রমে ১১, ১০ ও ৭ বছর।গত ২১শে ফেব্রুয়ারি দুই মেয়েকে নিয়ে দুবাই হয়ে বাংলাদেশে চলে আসেন ইমরানশরীফ। আর ছোট মেয়েকে জাপানে রেখে গত ১৮ই জুলাই বাংলাদেশে আসেন এরিকো।

XS
SM
MD
LG