অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইথিওপিয়ায় সামরিক তৎপরতা বৃদ্ধি কূটনীতিকে পরাস্ত করতে পারে: আশঙ্কা যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ দূতের


ওয়াশিংটনে হোয়াইট হাউজের সামনে ইথিওপিয়ার সরকারকে সমর্থন করে হওয়া বিক্ষোভে বক্তাদের কথা শুনছেন কমীরা। নভেম্বর ২১, ২০২১।

যুক্তরাষ্ট্রের একজন শীর্ষ কূটনীতিক মঙ্গলবার বলেছেন, ইথিওপিয়ায় সামরিক পদক্ষেপের বৃদ্ধি দেশটির বছরখানেকের রক্তক্ষয়ী সংঘাত বন্ধের প্রচেষ্টাকে ব্যাহত করতে যাচ্ছে বলে তিনি উদ্বিগ্ন।

আফ্রিকা শৃঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ দূত জেফরি ফেল্টম্যান ইথিওপিয়া সফর থেকে ফিরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে জানান, তিনি এবং অন্যান্য কূটনীতিকরা ইথিওপিয়ার কেন্দ্রীয় সরকার এবং টিগ্রায়ান পিপলস লিবারেশন ফোর্সের নেতৃত্বাধীন বাহিনীর মধ্যে সংঘাত কমানো এবং যুদ্ধবিরতির জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন। টিপিএলএফ বলেছে, ঐ বাহিনীটি হচ্ছে টিগ্রায় ডিফেন্স ফোর্সেস (টিডিএফ)। দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার বলছে, টিপিএলএফ হচ্ছে একটি চিহ্নিত সন্ত্রাসী গোষ্ঠী

ফেল্টম্যান বলেছেন, আলোচনায় অগ্রগতি হয়েছে। তবে তিনি স্বীকার করছেন যে, উভয় পক্ষই আরও সংঘর্ষের জন্য প্রস্তুত রয়েছে।

ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ সোমবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘোষণা করেছেন যে, তিনি ব্যক্তিগতভাবে তার বাহিনীকে নেতৃত্ব দেবার জন্য যুদ্ধক্ষেত্রে যাবেন। তিনি দেশটির নাগরিকদের তার সঙ্গে যোগ দেবার আহ্বান জানান।

অন্যদিকে, টিপিএলএফ'র নেতৃত্বাধীন বাহিনী রাজধানী আদ্দিস আবাবার ২২০ কিলোমিটার দূরের একটি শহর সোমবার দখল করে নিয়েছে। টিপিএলএফ দক্ষিণ দিক দিয়ে রাজধানীর দিকে আগ্রসর হচ্ছে।

ফেল্টম্যান মঙ্গলবার উভয় পক্ষকে তীব্র যুদ্ধের দ্বারপ্রান্ত থেকে ফিরে আসার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, “এক বছরের বেশি সময় ধরে চলা যুদ্ধ, হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু ও লড়াইয়ের কারণে মানুষ বাস্তুচ্যুত হবার পর এটা পরিষ্কার হওয়া উচিৎ যে সেখানে সামরিক কোন সমাধান নেই”।

ফেল্টম্যান বলেন, এই সংঘাতে যুক্তরাষ্ট্র কোন পক্ষ নেয়নি। তবে যুক্তরাষ্ট্র টিগ্রায়ান বাহিনীর রাজধানীর দিকে অগ্রসর হবার বিরুদ্ধে ছিল বলে তিনি মন্তব্য করেন।

XS
SM
MD
LG